(প্রিয়.কম) জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার পর থেকেই বিশেষ নজরে আছেন সৌম্য সরকার। তার ব্যাটিংয়ের ধরন, শট খেলার প্রবণতা তাকে আলাদাভাবেই পরিচয় করিয়ে দিয়েছে। যে কারণে টানা বেশ কয়েক ম্যাচে খারাপ করার পরও বাঁ-হাতি এই ওপেনারকে দলে রাখার ব্যাপারে ইতিবাচক থাকেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের নির্বাচকরা।  

যদিও বাজে ফর্মের কারণে মাঝে দল থেকে ছিটকে গিয়েছিলেন সৌম্য। গত বছরের শেষের দিকে পুরো ইংল্যান্ড সিরিজে ছিলেন দর্শক সারিতে। দলে ফেরেন চলতি বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ড সফর দিয়ে। এরপর টানা রান করেছেন। কিন্তু চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে কথা বলেনি সৌম্যর ব্যাট। চার ম্যাচে করেছেন মাত্র ৩৪ রান।

এমন ব্যাটিং নিয়ে ব্যাখ্যা দিলেন জাতীয় দলের ড্যাশিং এই ওপেনার। জানালেন তার ব্যাটিং ধরনটাই এমন। অন্যান্যদের কাছে নিজের ব্যাটিং দেখতে ঠিক কেমন মনেহয়, সেটা বুঝতে পারেন তিনি। সৌম্যর ধারণা, রান পেলে তার ব্যাটিং দেখতে ক্রিকেটমোদীদের কাছে ভালো লাগে। আর না পেলে বাজে দেখায় তার ব্যাটিং।

সোমবার মিরপুরে অনুশীলন শেষে নিজের ব্যাটিং নিয়ে সৌম্য বললেন, ‘চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কিছুক্ষণ ক্রিজে ছিলাম। বাকি ম্যাচগুলো দ্রুত আউট হয়ে গেছি। আমার খেলার ধরনটাই এমন। যখন রান করি তখন ব্যাটিং দেখতে হয়তো ভালো লাগে। যখন রান না পাই তখন হয়তো ব্যাটিংটা দেখতে বাজে লাগে।’

ঠিক সমস্যাটা কোথায়? পুরনো প্রশ্নই নতুন করে করা হলো বাংলাদেশের হয়ে সাত টেস্ট, ৩১ ওয়ানডে ও ২৪ টি-টোয়েন্টি খেলা সৌম্যকে। বাংলাদেশ ওপেনার বললেন, ‘একদিন হয়তো ভালো করছি, একদিন হচ্ছে না। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে হয়তো খারাপ করেছি। তার আগের সিরিজটা আবার ভালো করেছি। সবাই হয়তো বলছে। আমি সবার কথা শুনছি না। আমি নিজেই উপলব্ধি করেছি, আমার সমস্যা আমাকেই বের করতে হবে।’

তবে সমস্যা যে একই ধরনের নয়, সেটা ‍বুঝতে কষ্ট হচ্ছে না তিন ফরম্যাট মিলিয়ে একটি সেঞ্চুরির মালিক সৌম্যর, ‘রেগুলার যদি একই রকম আউট হতাম, তাহলে বুঝতাম আমার একই রকম সমস্যা। কিন্তু আউটগুলো এক রকম নয়। সমস্যাটা ভিন্ন। আমি চেষ্টা করি সমস্যাগুলো সমাধান করার। আমাকে রান করতে হবে। এটাই এখন আমার সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।’

ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টিতে ইনিংস উদ্বোধন করলেও টেস্টে ছয়-সাত নম্বরে নামতে হয় সৌম্যকে। তবে এ নিয়ে আফসোস নেই তার। দলের প্রয়োজনেই ব্যাট চালাতে চান ২৪ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান, ‘ওয়ানডে ও টেস্টের মধ্যে পার্থক্য আছে। এখন টিম যেখানে নামাচ্ছে, হয়তো মনে করছে আমি এখানেই বেটার। আমার কোনো সমস্যা নেই। যে কোনো পজিশনেই আমি খেলতে প্রস্তুত।’