(প্রিয়.কম) গণভোটের মাধ্যমে স্বাধীনতা ঘোষণার পথে হাঁটা থেকে বিরত হয়ে তা বর্জনের জন্য কাতালোনিয়ার সরকারকে ৮ দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছেন স্পেনের প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাজয়। অন্যথায় অঞ্চলটির স্বায়ত্তশাসন বাতিল করা হবে।

গত ১০ অক্টোবর মঙ্গলবার রাতে প্রতীকী স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে তা স্থগিত করেন কাতালোনিয়ার আঞ্চলিক সরকারের রাষ্ট্রপতি কর্লোস পুজদেমন। মাদ্রিদের সঙ্গে আলোচনার পথ খোলা রাখতেই এমনটা করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছিল।  

এ বিষয়ে স্পেন সরকারের পদক্ষেপ কী হবে, তা নিয়ে আলোচনার জন্য স্থানীয় সময় বুধবার সকালে বৈঠকে বসে স্পেনের মন্ত্রিসভা।

বৈঠক শেষে টেলিভিশনে প্রচারিত ভাষণে রাজয় বলেন, ‘কাতালোনিয়ার স্বাধীনতা ঘোষণা করেছে কি না তা নিশ্চিত করতে কাতালান সরকারকে আনুষ্ঠানিক অনুরোধ জানানোর বিষয়ে আজ সকালে মন্ত্রিসভা সম্মত হয়েছে, ওই ঘোষণার কার্যকারিতা নিয়ে ইচ্ছাকৃতভাবে যে সংশয় সৃষ্টি করা হয়েছে, তা গ্রাহ্য করা হয়নি।’

স্পেনের পার্লামেন্টকে রাজয় বলেন, ‘প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য কাতালান সরকারের কাছে ১৬ অক্টোবর, সোমবার ০৮:০০ জিএমটি পর্যন্ত সময় আছে। স্বাধীনতা ঘোষণা করা হয়েছে, পুজদেমন যদি এটি নিশ্চিত করেন তাহলে তা সংশোধন করার জন্য ১৯ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার ০৮:০০ জিএমটি পর্যন্ত আরও তিন দিন সময় পাবেন তিনি। এতে ব্যর্থ হলে অনুচ্ছেদ ১৫৫ কার্যকর করা হবে।’

স্পেনের এমন কড়া অবস্থানের পর কাতালান সরকারের পদক্ষেপ সম্পর্কে এখনও পরিষ্কার কিছু জানা যায়নি। তবে কাতালোনিয়ার সরকার বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে পদক্ষেপ গ্রহণে ব্যর্থ হলে অঞ্চলটির রাজনৈতিক স্বায়ত্তশাসন স্থগিত করে সরাসরি অঞ্চলটির শাসনভার গ্রহণ করার দিকে যাবেন রাজয়, এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।

নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতিতে সমৃদ্ধ কাতালোনিয়াকে হারানো স্পেনের জন্য বড় ধাক্কা হয়ে দেখা দেবে। কারণ দেশটির অর্থনৈতিক আয়ের এক-পঞ্চমাংশ ও রপ্তানি আয়ের এক-চতুর্থাংশেরও বেশি ওই অঞ্চলটি থেকেই আসে।

মারিয়ানো রাজয়ের এই পদক্ষেপে মাদ্রিদের সঙ্গে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ওই সমৃদ্ধ অঞ্চলটির বিরোধ আরও গভীর হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। পাশাপাশি এতে ১৯৮১ সালের ব্যর্থ সামরিক অভ্যূত্থানের পর স্পেনের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক সংকটের একটি সমাধানেরও ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে।

সূত্র: রয়টার্স 

প্রিয় সংবাদ/শান্ত