স্যাটেলাইট প্রকল্পে ২০০ কোটি টাকা খরচ কমেছে : মোস্তাফা জব্বার

‘আমরা গোপনে কিছু করিনি, প্রকল্পটি যত টাকার ছিল তার চেয়ে ২০০ কোটি টাকা কমে শেষ হয়েছে।’

হাসান আদিল
সহ-সম্পাদক
১৬ মে ২০১৮, সময় - ১৭:৩৩

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। ফাইল ছবি

(ইউএনবি) বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ সম্পর্কে কোনো কিছুই গোপন করা হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। 

১৬ মে, বুধবার বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) কার্যালয়ের সামনে বিশ্ব টেলিযোগাযোগ ও তথ্য সংঘ দিবস-২০১৮ উদযাপনের ‘রোড শো’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘আমরা গোপনে কিছু করিনি, প্রকল্পটি যত টাকার ছিল তার চেয়ে ২০০ কোটি টাকা কমে শেষ হয়েছে।’

সম্প্রতি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট -১ প্রকল্পে ব্যয়ের পূর্ণাঙ্গ হিসাব প্রকাশের জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান।

বিএনপির এই দাবির পরিপ্রেক্ষিতে মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‌‘চুক্তির ভিত্তিতে একটি প্রতিষ্ঠানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল কাজটি সম্পন্ন করার জন্য। এ চুক্তি প্রকাশ্য, এখানে কোনো গোপনীয়তা নেই। সেটি অত্যন্ত স্পষ্ট। আর কি হিসাব দেব? ওদের কি ভাউচার দেব আমরা- রিকশাভাড়া কত দিয়েছিলাম, কোন জায়গায় কত খরচ করেছি।

বিটিআরসির নেওয়া তিন হাজার কোটি টাকার একটি প্রকল্পের আওতায় ফরাসি প্রতিষ্ঠান তালেস এলিনিয়া স্যাটেলাইটটি তৈরি করে, এর উৎক্ষেপণ হয় যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি মহাকাশ গবেষণা সংস্থা স্পেসএক্সের মাধ্যমে।’

মন্ত্রী জব্বার আরও বলেন, ‘আগামীতে আরো স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের উদ্যোগ নেওয়া হবে। বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষের কাছে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ও মোবাইল ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট নিয়ে যেতে চাই। সে লক্ষ্যে কাজ করছি আমরা।’

এদিকে ১৭ মে বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে বাংলাদেশে পালিত হবে বিশ্ব টেলিযোগাযোগ ও তথ্য সংঘ দিবস-২০১৮। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য- ‘সবার জন্য কৃত্রিম বৃদ্ধিমত্তার ইতিবাচক ব্যবহারের সুযোগ সৃষ্টি।’

প্রিয় সংবাদ/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


স্পন্সরড কনটেন্ট
জনপ্রিয়
আরো পড়ুন