আর্থিক খাতের নীতিনির্ধারকদের নিয়ে মাইক্রোসফটের সম্মেলন

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্মেলনে বিভিন্ন আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে তাদের ব্যবসাকে পরবর্তী স্তরে নিয়ে যাবার ক্ষেত্রে উপকরণগুলো সম্পর্কে নিজেদের ধারণা আদান-প্রদান করেন এবং মাইক্রোসফট তাদের সামনে নতুন সুযোগগুলো উপস্থাপন করে।

জানিবুল হক হিরা
সহ-সম্পাদক
১৪ জানুয়ারি ২০১৮, সময় - ২২:১০

ব্যাংকিংখাতের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ও আর্থিক খাতের নেতৃবৃন্দদের নিয়ে সম্প্রতি ঢাকায় মাইক্রোসফটের সম্মেলন। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) ডিজিটাল জ্ঞান ও ধারণা আদান-প্রদানের উদ্দেশ্যে ব্যাংকিং খাতের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা (সিএক্সও) ও আর্থিক খাতের নেতৃবৃন্দদের নিয়ে সম্প্রতি এক সম্মেলনের আয়োজন করেছে মাইক্রোসফট। সম্মেলনটি রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়।

১৪ জানুয়ারি রোববার প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্মেলনে বিভিন্ন আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে তাদের ব্যবসাকে পরবর্তী স্তরে নিয়ে যাবার ক্ষেত্রে উপকরণগুলো সম্পর্কে নিজেদের ধারণা আদান-প্রদান করেন এবং মাইক্রোসফট তাদের সামনে নতুন সুযোগগুলো উপস্থাপন করে।

সম্মেলনে ডিজিটাল রূপান্তর ও ব্যাংকিং খাতের প্রডাক্টিভিটির ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। পাওয়ার বিআই ও অ্যানালিটিকস কীভাবে নীতিনির্ধারকদের সহায়তা করতে পারে এবং ক্লাউড কম্পিউটিং কীভাবে ব্যাংকিং খাতকে পরবর্তী স্তরে নিয়ে যেতে পারে, সম্মেলনে তা দেখানো হয়।

এ নিয়ে মাইক্রোসফট এশিয়া প্যাসিফিকের সাউথইস্ট এশিয়ার নিউ মার্কেটসের চিফ অপারেটিং অফিসার রেনা চাই বলেন, ‘আমরা চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের খুব কাছাকাছি। বর্তমানে ব্যবসা প্রক্রিয়া, ব্যবসায় গ্রাহক ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সম্পর্ক বজায় রাখার ক্ষেত্রে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। মাইক্রোসফট আরও বেশি কিছু অর্জনে বিশ্বের প্রতিটি মানুষ ও প্রতিষ্ঠানের ক্ষমতায়ন চায়। তাই বাংলাদেশের আর্থিক সেবাখাতের নতুন ও বিদ্যমান তথ্য থেকে ব্যবসায়িক অন্তর্দৃষ্টি খুঁজে বের করে, বিশেষ করে নির্দিষ্ট ডিজিটাল চ্যানেলের সেবা বিস্তৃত করার মাধ্যমে গ্রাহকদের চাহিদা ও প্রত্যাশা আরও ভালোভাবে পূরণে সহায়তা করবে মাইক্রোসফট।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা বাংলাদেশের আর্থিক সেবা খাতের উন্নতিতে আমাদের সুযোগ ও সহায়তার বিস্তৃতি ঘটাব। ব্যবসায়িক নেতৃবৃন্দ তাদের প্রতিষ্ঠানকে কোন অবস্থায় দেখতে চায়, এটা নতুন করে ভাবতে ও এ জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে আমরা সকল ব্যবসায়িক নেতৃবৃন্দকে আহ্বান জানাচ্ছি।’

মাইক্রোসফট বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান ও লাওসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোনিয়া বশির কবির বলেন, ‘ডিজিটাল ডিসরাপশনের এ সময়ে ব্যাংকিং খাত প্রযুক্তির সুবিধা নিয়ে কার্যক্রমের সঠিক পরিচালনায় ও মুনাফা বৃদ্ধিতে সঠিক উপকরণ ব্যবহার করে কর্মীদের ক্ষমতায়ন করতে পারে এবং গ্রাহকদের সাথে তাদের সম্পর্ককে আরও ঘনিষ্ঠ করতে পারে।’

সোনিয়া বলেন, ‘বাংলাদেশের ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প বাস্তবায়নের পথে রয়েছে এবং মানুষ খুব দ্রুতই নতুন প্রযুক্তিতে অভ্যস্ত হওয়া শুরু করেছে। তাই ব্যাংকগুলোর জন্য এখনই সময় সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করার তথ্যকে ইনসাইটে রূপান্তরিত করার, ধারণাকে কার্যক্রমে রূপান্তর করা, গ্রাহকদের সাথে আরও ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে তোলার এবং তাদের পরামর্শদাতা হয়ে ওঠার।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, মাইক্রোসফট এশিয়া ডিজিটাল রূপান্তর গবেষণায় এশিয়ার পাঁচটি খাতের ১৪শ’ ৯৪ জন ব্যবসায়িক নেতৃবৃন্দের মধ্যে জরিপ চালানো হয়; যাদের মধ্যে ৩শ’ ৩৫ জন আর্থিক সেবা খাতের। এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ১৩টি বাজারে অন্তত আড়াইশ’র বেশি কর্মী রয়েছে- এমন প্রতিষ্ঠানের মধ্যেই জরিপ চালানো হয়। জরিপে অংশগ্রহণকারী সকল ব্যবসায়িক নেতৃবৃন্দেরই ডিজিটাল স্ট্র্যাটেজির পরিবর্তনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানকে নতুন রূপদানের পূর্ব অভিজ্ঞতা ছিল।

প্রিয় সংবাদ/হিরা/শান্ত 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


স্পন্সরড কনটেন্ট
জনপ্রিয়
আরো পড়ুন