অর্থমন্ত্রীর দফতরে গ্রামীণ ব্যাংকের লভ্যাংশ গ্রহণ করছেন আবুল মাল আবদুল মুহিত। ছবি: সংগৃহীত

চালের দামকে ‘অসহনীয়’ বললেন অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা চেয়েছিলাম চালের দাম কিছুটা বাড়ুক। তবে দামটা অনেক বেড়ে গেছে। আগে অনেক কম ছিল। সেটা ভালোই ছিল কিন্তু ৫০ টাকার উপরে ওঠে যাওয়াতে কিছু লোকের খুব অসুবিধা হয়েছে।’

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ২৪ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৭:০৩ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ০১:৩২
প্রকাশিত: ২৪ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৭:০৩ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ০১:৩২


অর্থমন্ত্রীর দফতরে গ্রামীণ ব্যাংকের লভ্যাংশ গ্রহণ করছেন আবুল মাল আবদুল মুহিত। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) যে হারে চালের দাম বেড়েছে, তাকে ‘অসহনীয়’ বলে অভিহিত করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত

২৪ ডিসেম্বর রোবাবর সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রীর দফতরে গ্রামীণ ব্যাংকের লভ্যাংশ গ্রহণের সময় তিনি এ মন্তব্য করেন। 

মুহিত বলেন, ‘কৃষকদের সুবিধার্থে সরকারই চেয়েছিল চালের দাম বাড়ুক। তবে যে পরিমাণ বেড়েছে, এটা অসহনীয়।’

চালের দাম বৃদ্ধিতে সরকারের ইচ্ছে ছিল, তবে এতটা না- উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা চেয়েছিলাম চালের দাম কিছুটা বাড়ুক। তবে দামটা অনেক বেড়ে গেছে। আগে অনেক কম ছিল। সেটা ভালোই ছিল কিন্তু ৫০ টাকার উপরে ওঠে যাওয়াতে কিছু লোকের খুব অসুবিধা হয়েছে।’

বেসরকারি একটি গবেষণা সংস্থার প্রতিবেদনে দেখা গেছে, চালের দাম বৃদ্ধির কারণে দারিদ্রের কবলে পড়েছেন দেশের ৫ লাখ ২০ হাজার মানুষ। দারিদ্রের হার বেড়েছে ০.৩২ শতাংশ।

এ প্রসঙ্গ টেনে এনে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘চালের দাম বাড়ার কারণে কত শতাংশ দারিদ্র্যের হার বেড়েছে, সেটা এখনই নির্ধারণ করা সম্ভব নয়। কিন্তু এটা সঠিক যে, চালের দাম বাড়ার কারণে সাধারণ মানুষের অনেক অসুবিধা হয়েছে। আগামীতে উৎপাদন বাড়লে চালের দাম কমে আসবে।’

সেসময় চালের দাম কমানোর জন্য সরকারের কোনো সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপের কথা জানাতে পারেননি মন্ত্রী।  

প্রিয় সংবাদ/আদিল/শান্ত