(প্রিয়.কম) চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার সোনাইছড়ির ত্রিপুরাপাড়া থেকে আট কিলোমিটার দূরের একটি পাড়ায় অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত শিশুর সন্ধান মিলেছে। এলাকাটি ছোট কুমিরা ত্রিপুরাপাড়া নামে পরিচিত। ওই পাড়া থেকে রোববার এক শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্য শিশুদের মতো সেও জ্বরে আক্রান্ত। তার শরীরেও লালচে গোটা দেখা দিয়েছে।

এ পর্যন্ত সীতাকুণ্ডের তিনটি ত্রিপুরাপাড়ায় অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত ৮৬ জন রোগী (একজন শুধু অন্তঃসত্ত্বা নারী বাকিরা শিশু) হাসপাতালে ভর্তি হলো। তাদের মধ্যে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৫১ জন এবং ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকসাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) হাসপাতালে ৩৫ জন চিকিৎসাধীন রয়েছে। 

এড় আগে ১৫ জুলাই সীতাকুণ্ডের দক্ষিণ সোনাইছড়ির বগুলাবাজার ত্রিপুরাপল্লি থেকে ১২ শিশুসহ ১৩ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর আগে ১২ জুলাই সীতাকুণ্ডের মধ্যম সোনাইছড়ি ত্রিপুরাপাড়ায় অজ্ঞাত রোগ ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি প্রথম জানাজানি হয়। 

৬ জুলাই থেকে ১২ জুলাইয়ের মধ্যে জ্বর, কাশি, বমিসহ নানা উপসর্গে ভুগে এই পাড়ার নয় শিশু মারা যায়। এর মধ্যে ১২ জুলাই এক দিনেই মারা যায় চার শিশু। সোনাইছড়ি ত্রিপুরাপাড়ায় দেড় কিলোমিটার দূরে বগুলাবাজার এলাকার ত্রিপুরাপল্লি। 

সীতাকুণ্ড উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ কর্মকর্তা এস এম নুরুল করিম বলেন, কুমিরা থেকে একটি শিশুকে গতকাল বিআইটিআইডি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এই শিশুটি সোনাইছড়ির ত্রিপুরাপাড়ায় বেড়াতে গিয়েছিল বলে তিনি শুনেছেন।

এদিকে সোনাইছড়ি ইউনিয়নের দুটি ত্রিপুরাপাড়ায় অজ্ঞাত রোগে শিশুদের আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার থেকে স্থানীয় তিনটি বিদ্যালয়ের ত্রিপুরা শিশুদের এক সপ্তাহের জন্য ছুটি দেওয়া হয়।

সূত্র: প্রথম আলো

প্রিয় সংবাদ/কামরুল