(প্রিয়.কম) নিরপরাধ মুসলিম জনগোষ্ঠীর ওপর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর এ নিধনযজ্ঞ খুবই অমানবিক ও হৃদয়বিদারক বলে জানিয়েছেন তুরস্কের ফার্স্ট লেডি এমিনে এরদোয়ান। রোহিঙ্গাদের সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে কক্সবাজারের কুতুপালং ক্যাম্প পরিদর্শনকালে তিনি বলেন, 'তুরস্ক অসহায় এসব রোহিঙ্গার পাশে থাকবে।' 

৭ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার বেলা দেড়টার দিকে কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌঁছান তুরস্কের ফার্স্ট লেডি এমিনে এরদোয়ান ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কেভুসেগলু। এ সময় নিবন্ধিত ক্যাম্প ছাড়াও তারা পাশের একটি অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর গুলিতে আহত ১২ রোহিঙ্গার সঙ্গে কথা বলেন ফার্স্ট লেডি এমিনে এরদোয়ান। তাদের মুখে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সেনাদের বর্বরতা ও নৃশংসতার কথা শুনেন তিনি।

এর আগে তুর্কি ফার্স্ট লেডি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী দুপুর ১২টায় কক্সবাজার বিমানবন্দরে পৌঁছান। সেখানে তাদের স্বাগত জানান বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। পরে তারা টেকনাফের কুতুপালংয়ের উদ্দেশে রওনা হন।

৬ সেপ্টেম্বর বুধবার দিবাগত রাত ১টার দিকে ঢাকায় আসেন তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও রাত ৩টার দিকে আসেন তুর্কি ফার্স্ট লেডি।

রোহিঙ্গা পরিস্থিতি পরিদর্শন শেষে আজই (বৃহস্পতিবার) তুর্কি ফার্স্ট লেডি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী কক্সবাজার থেকে ঢাকায় ফিরবেন। ঢাকায় ফিরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনার কথা রয়েছে মেভলুত কেভুসেগলুর।

প্রিয় সংবাদ/শান্ত