(প্রিয়.কম) রাখাইন রাজ্যে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর অব্যাহত গণহত্যা-‘জাতিগত নিধন’ চালানোর কারণে প্রায় ৪ লাখ ২১ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। এর সংখ্যা বছর শেষে ১০ লাখের কাছাকাছি পৌঁছে যেতে পারে বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ। 

সারা বিশ্বে ইউএনএইচসিআর কতৃক নিবন্ধিত ১৭.২ মিলিয়ন শরণার্থীর ৩০% এখন বাংলাদেশে। রোহিঙ্গাদের সহায়তার ২ কোটি ৭৭ লাখ ডলারের সমপরিমাণ তহবিল সংগ্রহ করেছে জাতিসংঘ। যা মোট চাহিদার ৩৫ দশমিক ৯ শতাংশ।

জাতিসংঘের ইন্টারসেক্টর কোঅর্ডিনেশন গ্রুপের (আইএসসিজি) সিচুয়েশন রিপোর্ট ও মানবিক সহায়তা দফতরের (ইউএনওসিএইচএ) ফিন্যান্সিয়াল ট্র্যাকিং সার্ভিস সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশে পালিয়ে আসা শরণার্থীর খাদ্য ও পুষ্টিনিরাপত্তা, মানবাধিকার, স্বাস্থ্যসেবা, আশ্রয়স্থল, নিরাপদ পানিসহ নানা মানবিক সহায়তা ও সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিতের জন্য বিভিন্ন উত্স থেকে মোট ৭ কোটি ৭১ লাখ ডলারের তহবিল সংগ্রহের চেষ্টা চালায় জাতিসংঘ।

এর মধ্যে এখন পর্যন্ত ২ কোটি ৭৭ লাখ ডলারের সমপরিমাণ অর্থ জোগানের নিশ্চয়তা ও প্রতিশ্রুতি পাওয়া গেছে যা মোট চাহিদার ৩৫ দশমিক ৯ শতাংশ। বিভিন্ন দেশের সরকার থেকে পাওয়া অনুদান ছাড়াও জাতিসংঘের কেন্দ্রীয় জরুরি তহবিল (সেন্ট্রাল ইমার্জেন্সি রেসপন্স ফান্ড) থেকে ব্যয় করা হবে প্রায় ৬৩ লাখ ৯ হাজার ডলার। 

জাতিসংঘের অধীনস্থ বিভিন্ন সংস্থাসহ সেভ দ্য চিলড্রেনের মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন প্রকল্পের আওতায় এ অনুদানের অর্থ ব্যয় করা হবে। রোহিঙ্গা সহায়তায় বেশি প্রায় ১ কোটি ১১ লাখ ৬৪ হাজার ডলার অনুদান দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ফ্রান্স সরকার দেবে ৩ লাখ ২২ হাজার ডলারের কিছু বেশি।কানাডা সরকার দেবে ২৬ লাখ ৮০ হাজার ডলার।

রোহিঙ্গাদের সহায়তায় যুক্তরাজ্য সরকার দেবে প্রায় ৬৪ লাখ ৬৮ হাজার ডলার। নেদারল্যান্ডস সরকার অনুদান দিচ্ছে প্রায় ৬ লাখ ১ হাজার ডলার। ডেনমার্ক সরকারের কাছ থেকে অনুদান বাবদ পাওয়া যাবে প্রায় ৮১ হাজার ডলার। এর আগে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে যুক্তরাজ্য ও সুইডেনের অনুরোধের প্রেক্ষিতে জরুরি বৈঠকে বসেছিল জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ

চলমান রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় মঙ্গলবার জাতিসংঘ সদর দফতরে ওআইসি কনট্যাক্ট গ্রুপের বৈঠকে ছয় দফা প্রস্তাব তুলে ধরেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতিসংঘের ৭২তম সাধারণ অধিবেশনে সংস্থাটির সদর দফতরে বক্তৃতাকালে রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধানে দ্রুত কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণের জন্য জাতিসংঘ এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহবানও জানিয়েছেন তিনি।

সে সময় রোহিঙ্গা সংকটের স্থায়ী সমাধানে পাঁচটি প্রস্তাব তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এদিকে স্বাস্থ্য অধিদফতর এবং কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, শরণার্থী ক্যাম্পে আশ্রয় নেওয়া প্রায় ১৫ হাজারেরও বেশি অন্তঃসত্ত্বা নারী রয়েছেন, তাদের একাংশ সন্তান জন্ম দিচ্ছে।

ফলে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা শরণার্থীদের বাইরেও প্রতিদিন যোগ হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ নবজাতক। আর ‘১০ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে স্থায়ীভাবে আশ্রয় দেওয়ার সামর্থ্য বাংলাদেশের নেই’ বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ।

প্রিয় সংবাদ/মিজান