ছবি সংগৃহীত

জীবনের সর্বক্ষেত্রেই মনোবল অটুট রাখতে হবে: সাব্বির আহমেদ

সাব্বির আহমেদ- যার নেশাই হল প্রামাণ্যচিত্র ও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র বানানো। পড়াশোনাও করেছেন এই বিষয়ে। প্রিয়.কমের অফিসেই দারুণ মানুষটির সাথে আড্ডা হল।

বুশরা আমিন তুবা
ফিচার লেখক, প্রিয়.কম
প্রকাশিত: ১০ মার্চ ২০১৭, ১২:৪৬ আপডেট: ১৯ আগস্ট ২০১৮, ২৩:৪৮


ছবি সংগৃহীত

স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাতা সাব্বির আহমেদ।  ছবি: শামছুল হক রিপন, প্রিয়.কম

(প্রিয়.কম) সাব্বির আহমেদ। যার নেশাই হল প্রামাণ্যচিত্র ও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র বানানো। পড়াশোনাও করেছেন এই বিষয়ে। স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের পাট চুকিয়ে কিছুদিনের মধ্যেই তিনি যাচ্ছেন মালয়েশিয়ায় পিএইচডি করতে। প্রিয়.কমের অফিসেই এই দারুণ মানুষটির সাথে আড্ডা হল সেদিন।

 প্রিয়.কম: প্রথমেই আপনাকে অনেক ধন্যবাদ আফিসে আসার জন্য।

সাব্বির আহমেদ: আপনাকেও ধন্যবাদ।

প্রিয়.কম: আপনার বর্তমান ব্যস্ততা কি নিয়ে?

সাব্বির আহমেদ: আমি ১৫ তারিখে পিএইচডি করতে মালয়েশিয়া চলে যাচ্ছি। এটা নিয়েই দারুণ ব্যস্ত এখন। ভিসা, পাসপোর্ট, আনুষঙ্গিক সবকিছু গোছাতে গোছাতেই সময় পার করছি।

প্রিয়.কম: আপনার পড়াশোনা তো মিডিয়া বিষয়ে। কোথায় পড়াশোনা করেছেন?

সাব্বির আহমেদ: আমি ইউল্যাব থেকে মিডিয়া স্টাডিজ ও জার্নালিজম বিষয়ে পড়াশোনা করেছি। স্নাতক ও স্নাতকোত্তর দুটোই একই বিষয়ে।

প্রিয়.কম: আপনার শর্টফিল্ম বিষয়ে কিছু কথা বলা যাক। কবে থেকে এই নেশা ঢুকলো মাথায়?

সাব্বির আহমেদ: বেশ কয়েক বছর ধরেই এই নেশা আমার। এই পর্যন্ত ছয়টি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র বানানো হয়েছে আমার। সেগুলোর মধ্যে কয়েকটি হলঃ Ghysophobia: Not a Phobia এটি ২০১৪ সালে মুক্তি পায়, 'স্বপ্নঘর' ২০১৫ সালে মুক্তি পায় ও 'স্বপ্নানুভূতি' ২০১৪ সালে মুক্তি পায়।

প্রিয়.কম: আপনি তো টুকটাক অভিনয়ও করেন। সেই ব্যাপারে কিছু বলুন।

সাব্বির আহমেদ: ইদানিংকালে কিছু শর্টফিল্মে অভিনয় করছি। (মুচকি হেসে) আমি অবশ্য এতে খুব একটা স্বচ্ছন্দ নয়। অনেক আগে আমি ও আমার স্ত্রী বুশরা একটা শর্টফিল্মে অভিনয় করেছিলাম। প্রযোজক হয়তো দেখেছিলেন ব্যাপারটা। পরবর্তীতে তিনি আমাদের অভিনয় করার প্রস্তাব দেন। এভাবেই আর কি।

প্রিয়.কম: আপনার মাথায় কখন ছবি বানানোর ইচ্ছা জাগল?

সাব্বির আহমেদ: স্নাতক শ্রেণীতে পড়াকালেই আমি একটি প্রোডাকশন হাউজ দিই ‘ইচ্ছা প্রোডাকশন’ নামে। আমরা তখন শর্টফিল্ম, ভিডিও এডিটিং, মুভি বানানোর কাজ এগুলো করছিলাম। তখন থেকে ছবি বানানোর ইচ্ছেটা মাথাচাড়া দিয়ে উঠলো।

প্রিয়.কম: একটা স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবি বানাতে কেমন সময় লাগে?

সাব্বির আহমেদ: প্রি-প্রোডাকশন থেকে শুরু করে ছবিটা অন এয়ার হতে দশ দিনের মত সময় লাগে। শ্যুটিং করতে ৩-৪দিন, এডিটিং করতে আরো ২ দিন। শেষে সকল প্রস্তুতি নিয়ে ছবিটি মুক্তি পায়।

প্রিয়.কম: একটি ছবিতে তো বিভিন্ন ধরনের চরিত্র থাকে। সেগুলো আপনারা কিভাবে খুঁজে আনেন?

সাব্বির আহমেদ: এটা আসলে নির্ভর করে চলচ্চিত্রটি কেমন হবে তার উপর। পরিধির উপরেও নির্ভর করে। অনেক বেশি চরিত্র থাকলে অবশ্যই ভালো মত সময় নিয়ে খুঁজতে হয়। তখন পরিচিতদের মধ্যেই যারা ইউটিউবে আছেন, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করি।

প্রিয়.কম: আপনি আপনার শর্টফিল্মের মাধ্যমে কোন বার্তাটি পৌঁছে দিতে চান দর্শকদের কাছে?

সাব্বির আহমেদ: সত্যি কথা বলতে কি, আমার ছবিগুলো আমি যেকোন উপলক্ষ্যকে সামনে রেখে বানাই। সর্বশেষ যেটি বানিয়েছি, সেটি হল ভালোবাসা দিবসকে কেন্দ্র করে। তাই যেকোন বিশেষ তারিখকে কেন্দ্র করেই ছবিগুলো বানানো হয়।

সাব্বির আহমেদ। ছবি: শামছুল হক রিপন, প্রিয়.কম 

প্রিয়.কম: এবার একটু ব্যক্তিগত প্রশ্ন, স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাতা ও অভিনেতা কোন পরিচয়ে আপনি বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন?

সাব্বির আহমেদ: (হেসে) অবশ্যই নির্মাতা। নির্মাতা পরিচয়ের চেয়েও আমি প্রযোজকের পরিচয়ে বেশি ভালো বোধ করি। অভিনেতা হিসেবে আমার প্রথম প্রতিবন্ধকতা হল আমার চেহারার অভিব্যক্তি। আমি অনেক চেষ্টা করে, পরে সফল হই একেকটা এক্সপ্রেশন দিতে।

প্রিয়.কম: স্নাতক, স্নাতকোত্তর পড়াশোনা করেছেন, আবার নিজের স্বপ্নের পেছনেও ছুটেছেন। এই দুই ব্যাপারে সামঞ্জস্য রাখলেন কিভাবে?

সাব্বির আহমেদ: আসলে, আমার পড়াশোনার বিষয়ের কাছাকাছিই ছিল তো স্বপ্নপূরণের ব্যাপারটা। তাই পড়াশোনার ফাঁকে ফাঁকে করেছি। সমস্যা হয়নি কোন। কিন্তু এবার একটু ভাটা পড়বে। আমি ২-৩ বছরের মত একটা গ্যাপ নিতে চলেছি।

প্রিয়.কম: আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি এখন?

সাব্বির আহমেদ: মিডিয়া লাইনে আপাতত কোন পরিকল্পনা নেই। আমি তো পিএইচডি করতে যাচ্ছি অনলাইন মার্কেটিংয়ের ওপর। তিন বছরের মত সময় লাগবে এতে। এই ব্যাপারটা দখল আনতে হবে। এছাড়া শিক্ষকতা করতে চাই।

প্রিয়.কম: তাহলে পিএইচডির বিষয়টি ফিল্ম না হয়ে অন্য বিষয় কেন হল?

সাব্বির আহমেদ: ফিল্মের ওপরে আমার আগ্রহ ছিল। কিন্তু ফিল্ম বানানোতে আমার আগ্রহ ছিলনা। ওদের যে ব্রান্ডিং, সেটার ওপর আমার বেশ আগ্রহ ছিল। যেভাবে বাইরের দেশে একটা ছবি দিয়েই ওরা অনেক কিছু মার্কেটিং করে ফেলেছে, সেটা আমার বেশ নজর কাড়লো।

প্রিয়.কম: ইদানিং তো অনেকেই ছবি বানাচ্ছেন, নতুন নির্মাতাদের জন্য আপনার বার্তা কি?

সাব্বির আহমেদ:  যত বড় বাধাই আসুক না কেন সামনে, কাজ করে যেতে হবে। অনেকেই প্রথমবারেই বেশ সাফল্য পান, আবার অনেকেই ব্যর্থ হন। এক্ষেত্রে মনোবল না হারিয়ে অটুট থাকতে হবে।

প্রিয়.কম:  আপনাকে অনেক ধন্যবাদ আমাদের সময় দেয়ার জন্য।

সাব্বির আহমেদ: আপনাকেও ধন্যবাদ। 

সম্পাদনা: শামীমা সীমা

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
গোয়া আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে ‘কমলা রকেট’
নিজস্ব প্রতিবেদক ২০ নভেম্বর ২০১৮
বিয়ের পর সদ্য বিবাহিত দীপিকা-রণবীরের ঝলক
তাশফিন ত্রপা ২০ নভেম্বর ২০১৮
প্রধানমন্ত্রী নিলেন আমজাদের চিকিৎসার দায়িত্ব
নিজস্ব প্রতিবেদক ২০ নভেম্বর ২০১৮
স্পন্সরড কনটেন্ট