ফাইল ছবি

(প্রিয়.কম) গত ডিসেম্বরের ঘটনা। নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় নেওয়ার বিষয়টি স্বচক্ষে দেখতে মিয়ানমার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি উচ্চপর্যায়ের কমিটি টেকনাফের আশ্রয় শিবির পরিদর্শনে আসে। নৌপথে কর্মকর্তাদের যাতায়াতের কারণে ওপারের সীমান্ত মংডু থানা এলাকায় সেখানকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ছিল কঠোর নিরাপত্তায়। কড়া নজরদারির কারণে ওপারের ইয়াবা মাফিয়ারা শতচেষ্টায়ও ওই দুই দিন ইয়াবার কোনো চালান বাংলাদেশে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের কাছে হস্তান্তর করতে পারেনি। এতে মংডুর একটি মাদকের ডেরায় পড়ে থাকে ইয়াবার দুই দিনের চালান। কিন্তু বিপুল পরিমাণ এই চালান  মংডুতে পড়ে থাকার খবরটি চাউর হয়ে যায়। সেখানকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান চালিয়ে দুই দিনের ইয়াবার চালান আটকে দেয়।

শনিবার দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনে প্রকাশিত ‘টেকনাফ কেন ইয়াবা সাম্রাজ্য’ শিরোনামে এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

হিসাব করে দেখা যায়, সেখানে প্রায় সোয়া দুই কোটি পিস ইয়াবা রয়েছে। কয়েক মণ ওজনের এই ইয়াবার চালানটি স্থল ও নৌপথে বাংলাদেশে পাচারের কথা ছিল। যা মিয়ানমারের গণমাধ্যমে গুরুত্ব সহকারে প্রকাশ পায়। বিষয়টি বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও জানে।

প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, মংডুতে ইয়াবার চালান আটকের মধ্য দিয়ে কী পরিমাণ ইয়াবা প্রতিদিন ঢুকছে বাংলাদেশে-তার একটি স্পষ্ট ধারণা পাওয়া গেছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, বাংলাদেশে পাচার হয়ে আসা ইয়াবার চালানের সঠিক কোনো তথ্য ছিল না, বা প্রকাশ হতো না। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সব সময় লাখের হিসাব করত। মংডুতে চালান আটকের পর এটা নিশ্চিত যে, লাখের হিসাব নয়, বাংলাদেশে এখন প্রতিদিনই ঢুকছে এক কোটির ওপর ইয়াবা।

গোয়েন্দা সূত্র জানায়, মিয়ানমার ও থাইল্যান্ডের সাগর সীমান্তে ইয়াবা তৈরির জন্য গড়ে উঠেছে ৪০টি কারখানা। আর  চট্টগ্রামের নৌপথে আসছে কোটি টাকার এসব ইয়াবা। পার হচ্ছে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে। পাচারকারীরা সুকৌশলে এ মাদক নিয়ে আসছে রাতের আঁধারে।

প্রিয় সংবাদ/আশরাফ