নাটোরে ৩৬০টি পূজা মন্ডপে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা। ছবি: সংগৃহীত

নাটোরে ৩৬০টি পূজা মণ্ডপে চলছে প্রস্তুতি, বইছে পূজার আমেজ

আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর শুরু হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা। নাটোরে ৩৬০টি পূজা মণ্ডপে পূজার অনুষ্ঠিত হবে।

তাপস কুমার
কন্ট্রিবিউটর, নাটোর
প্রকাশিত: ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৮:১৫ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ২১:৩৩
প্রকাশিত: ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৮:১৫ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ২১:৩৩


নাটোরে ৩৬০টি পূজা মন্ডপে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) দেবী মর্ত্যে আসছে, তারই আয়োজন যেন প্রকৃতিতে। আসছে ২৬ সেপ্টেম্বর শুরু হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা। আবহমান বাংলার ঐতিহ্য নৌকায় চড়ে দুর্গাদেবীর আগমন। পূজা মণ্ডপে তারই প্রস্তুতি। হিন্দু সম্প্রদায়ের বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা। এ পূজা উদযাপন উপলক্ষ্যে বিভিন্ন প্রস্তুতি নিতে ব্যস্ত সময় পার করছে নাটোরের প্রতিমা কারিগররা। দুর্গা পূজাকে ঘিরে নাটোরে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি।

জেলার প্রতিটি মণ্ডপে পুরোদমে চলছে প্রতিমা তৈরি ও মন্দির সাজানোর কাজ। এবার নাটোরে ৩৬০টি মণ্ডপে দুর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হবে। দিন-রাত প্রতিমা তৈরির কাজে ব্যস্ত কারিগররা। তবে তৈরির কাজও প্রায় শেষ। আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই রং তুলিসহ প্রতিমা তৈরির সকল কাজ সম্পন্ন হবে। এর পরেই দেবী সেজে উঠবে অপরুপ সাজে। শঙ্খ, উলুধ্বনী আর মঙ্গল সংগীতে দেবী দুর্গাকে বরণ করে নেবে সনাতনধর্মালম্বী ভক্তরা। আর আগে থেকে মা দুর্গাকে বরণ করে নিতে অধীর প্রতীক্ষায় দিন গুনছে হিন্দু সম্প্রদায়। আর তার জন্য চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি।

জেলার বিভিন্ন এলাকার পূজামণ্ডপ ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিমা প্রস্তুতির পাশাপাশি মণ্ডপগুলো ঘিরে করা হচ্ছে নানা সাজ সজ্জাসহ আলোক সজ্জার কাজ। পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করা হচ্ছে পূজা মণ্ডপ এলাকা। প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা। তাদের নৈপুণ্য কারুকার্য্য দেখতে ভিড় জমাচ্ছে দর্শকরা। সার্বজনীন এ পূজা উৎসব উপভোগে অসাম্প্রদায়িক মনোভাব নিয়ে জাতি ধর্ম নির্বিশেষে সকলে এক কাতারে হাজির হচ্ছে দেবী দর্শণে।

এ ছাড়াও ব্যাপক আনন্দের আমেজও বয়ে যাচ্ছে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িগুলোতে। এ উপলক্ষে ঘরে-ঘরে পিঠা-পুলি, খই-মুড়ি, মুন্ডা-মিঠাই, নাড়ু-সন্দেশ তৈরির ধুম পড়েছে। কারিগর সুকুমার চন্দ্র পাল জানান, পূজা শুরুর আগেই প্রতিমা তৈরির কাজ সম্পন্ন করতে আমরা বিরামহীনভাবে কাজ করছি। সকাল থেকে শুরু করে কাজ চলছে গভীর রাত পর্যন্ত। অর্ডারমত প্রতিমাকে গড়ে তুলতে চেষ্টার কোনও কমতি নেই। আগামী ৩/৪দিনের মধ্যেই প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ হবে বলে আশা করা যায়।

হিন্দু সম্প্রদায়ের ব্যক্তিবর্গরা জানান, ১ বছর পর মা আবার এই মর্ত্যে আসছে, এতে তারা খুব আনন্দিত। এদিকে সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে এবং নির্বিঘ্নে পূজা উদযাপন নিয়ে প্রসাশনিকসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিদের সঙ্গে হিন্দুসম্প্রদায় নেতাদের মতবিনিময় সভা, পূজা উদযাপনের প্রস্তুতিসহ বিশেষ বৈঠকও হয়েছে।

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি চিত্ত রঞ্জন সাহা জানান, সুষ্ঠু ও নির্বিঘ্নে পরিবেশে পূজা উদযাপনের প্রস্তুতি নিয়েছেন তারা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীনির পাশাপাশি সেচ্ছাসেবকও থাকবে পূজা মণ্ডপগুলোতে। জেলা পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার প্রিয়.কম-কে জানান, সুষ্ঠু ও নির্বিঘ্নে পূজা উদযাপন করতে এবং অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হবে। এবারে দেবী দুর্গার আগমন ঘটবে আবহমান বাংলার ঐতিহ্য নৌকায় চড়ে এবং বিদায় হবেন আনন্দের বারতা কাটিয়ে গজের পিঠে প্রস্থানের মধ্য দিয়ে মহাপ্রস্থানের সমাপ্তি ঘটবে। পৃথিবী থেকে সব অশান্তি, অন্যায়, পাপাচার ও সকল অশুভ শক্তি বিনাশ করে সত্য, ন্যায় ও সুন্দরকে প্রতিষ্ঠা করবেন, এমনটাই প্রত্যাশা সবার।

তিনি আরও বলেন, সম্প্রতির জেলা নাটোর। কোন অপশক্তি নাটোরের এই সম্প্রতি যেনো নষ্ট না করতে পারে সেই সবাইকে সজাগ থাকার আহ্বান জানান। এজন্য আজান ও নামাজের সময় ঢাক/ডোল না বাজানোর অনুরোধ করেন।

প্রিয় সংবাদ/কামরুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...