বিশ্ব ইজতেমা ময়দান। পুরোনো ছবি

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু শুক্রবার

দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমায় মুসল্লিদের অংশ নেওয়ার জন্য জেলাওয়ারি পুরো প্যান্ডেলকে ২৮টি খিত্তায় ভাগ করা হয়েছে। এতে ১৬টি জেলার মুসল্লিরা অংশ নেবেন।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ১৮ জানুয়ারি ২০১৮, ১৪:৩৮ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ০২:১৬
প্রকাশিত: ১৮ জানুয়ারি ২০১৮, ১৪:৩৮ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ০২:১৬


বিশ্ব ইজতেমা ময়দান। পুরোনো ছবি

(বাসস) গাজীপুরের  টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে শুরু হচ্ছে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। ১৯ জানুয়ারি শুক্রবার আ’ম বয়ানের মধ্য দিয়ে ৩ দিনব্যাপী ইজতেমা শুরু হবে বলে জানিয়েছে আয়োজক কমিটি।

তাবলিগ জামাত আয়োজিত ইজতেমা ময়দানে বৃহস্পতিবার থেকে মুসল্লিরা দলে দলে আসতে শুরু করেছেন। আগামী ২১ জানুয়ারি রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমা।

মুসল্লিদের চাপ কমাতে ২০১১ সাল থেকে দুই পর্বে বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। 

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলসহ দেশ বিদেশের লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ তাবলিগ অনুসারী মুসল্লি বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বেও অংশগ্রহণ করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। প্রথম পর্বের মতো দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমার মুসল্লিদের নিরাপত্তায় ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এতে র‌্যাব, পুলিশ, আনসার ও বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সতর্ক অবস্থানে থাকবেন।

দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমায় মুসল্লিদের অংশ নেওয়ার জন্য জেলাওয়ারি পুরো প্যান্ডেলকে ২৮টি খিত্তায় ভাগ করা হয়েছে। এতে ১৬টি জেলার মুসল্লিরা অংশ নেবেন। খিত্তা অনুযায়ী এসব জেলাগুলো হচ্ছে, ১ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-১, ২ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-২, ৩ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-৪, ৪ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-১৯, ৫ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-২০, ৬ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-২১, ৭ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-৩, ৮ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-২৩, ৯ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-২২, ১০ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-৬, ১১ নম্বর খিত্তায় জামালপুর-১, ১২ নম্বর খিত্তায় জামালপুর-২, ১৩ নম্বর খিত্তায় ফরিদপুর, ১৪ নম্বর খিত্তায় কুড়িগ্রাম, ১৫ নম্বর খিত্তায় ঝিনাইদহ, ১৬ নম্বর খিত্তায় ফেনী, ১৭ নম্বর খিত্তায় সুনামগঞ্জ, ১৮ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-০৭, ১৯ নম্বর খিত্তায় ঢাকা-০৫, ২০ নম্বর খিত্তায় চুয়াডাঙ্গা, ২১ নম্বর খিত্তায় কুমিল্লা-০১, ২২ নম্বর খিত্তায় কুমিল্লা-০২, ২৩ নম্বর খিত্তায় রাজশাহী-০১, ২৪ নম্বর খিত্তায় রাজশাহী-০২, ২৫ নম্বর খিত্তায় খুলনা-০১, ২৬ নম্বর খিত্তায় ঠাকুরগাঁও, ২৭ নম্বর খিত্তায় খুলনা-২ ও ২৮ নম্বর খিত্তায় পিরোজপুর জেলার মুসল্লিরা অবস্থান করবেন।

গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী  আ ক ম মোজাম্মেল হক , যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য মো. জাহিদ আহসান রাসেল ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র এম এ মান্নান বিশ্ব ইজতেমার দেখভালের দায়িত্ব পালন করছেন। 

 

এর আগে গত ১২ জানুয়ারি শুক্রবার বাদ ফজর জর্দানের মাওলানা শায়েখ ওমর খতিবের আমবয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় এবারের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। এ আমবয়ান আরবিতে করা হয়। সেটি বাংলায় তরজমা করেন বাংলাদেশের মাওলানা সালেহ।

১৪ জানুয়ারি রোববার সকালে বিশ্বের মুসলিম উম্মাহর সুখ, শান্তি, কল্যাণ, অগ্রগতি, ভ্রাতৃত্ববোধ ও মঙ্গল কামনা করে আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শেষ হয়। বাংলায় মোনাজাত পরিচালনা করেন ঢাকার কাকরাইল জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা মোহাম্মদ জোবায়ের

প্রিয় সংবাদ/শিরিন

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...