রোববার থেকে ওয়াইএলপি সিজন-৫-এর কার্যক্রম শুরু

চার বছরের সাফল্যের ধারাবাহিকতায় আবারও শুরু হচ্ছে ইয়াং লিডারস প্রোগ্রাম-ওয়াইএলপি। পঞ্চমবারের মতো এই প্রোগ্রামের আয়োজন করছে যৌথভাবে চ্যানেল আই ও ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড।

শিবলী আহমেদ
সহ-সম্পাদক
১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, সময় - ১৯:৩৫

ইয়াং লিডারস প্রোগ্রাম-ওয়াইএলপি। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) চার বছরের সাফল্যের ধারাবাহিকতায় আবারও শুরু হচ্ছে ইয়াং লিডারস প্রোগ্রাম-ওয়াইএলপি। পঞ্চমবারের মতো এই প্রোগ্রামের আয়োজন করছে যৌথভাবে চ্যানেল আই ও ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড। সহযোগিতায় রয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন। ১৮ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশের সাতটি বিভাগের সব বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হবে এই প্রোগ্রামের বাছাই কার্যক্রম। ওয়াইএলপির একটি প্রতিনিধি দল পর্যায়ক্রমে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে জ্ঞান আদান-প্রদানের মধ্য দিয়ে প্রাথমিকভাবে মেধাবীদের নির্বাচন করবে। পরবর্তীতে বাছাইকৃত প্রতিযোগীদের নিয়ে শুরু হবে মূল পর্ব।

এ উপলক্ষে ১৭ ফেব্রুয়ারি রোববার রাজধানীর তেজগাঁওস্থ চ্যানেল আইয়ের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত থেকে এই প্রোগ্রামের বিস্তারিত তুলে ধরেন ইমপ্রেস টেলিফিল্ম লিমিটেড, চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, ওয়াইএলপি’র প্রধান বিচারক ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যালস্‌ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল মুক্তাদির। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রতিযোগিতার সহযোগী বিচারক ইউনিট্রেন্ড লিমিটেডের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার এবং ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউনটেন্টস অব বাংলাদেশ-আইসিএবি’র কনসালটেন্ট তাসলিম আহমেদ। সংবাদ সম্মেলনে এই প্রোগ্রামের সাফল্য কামনা করে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন কর্পোরেট জগতের বিভিন্ন ব্যক্তি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হন অনুষ্ঠানটির আয়োজকরা। ছবি: সংগৃহীত

ইয়াং লিডারস প্রোগ্রাম (ওয়াইএলপি) হচ্ছে গতানুগতিক ধারার বাইরের এক বিশেষ রিয়েলিটি শো, যেখানে দেশের মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের একত্রিত করে লিডারশিপ দক্ষতা তুলে ধরার সুযোগ দেওয়া হয়। সেরা মেধাবীদের পুরস্কার স্বরূপ দেওয়া হয় শিক্ষাবৃত্তি।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ‘স্নাতক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে লিখিত পরীক্ষার মাধ্যমে প্রাথমিক পর্যায়ে ১০০ জনকে বাছাই করা হবে। তারা পরবর্তীতে অংশ নেবেন মৌখিক পরীক্ষায়। মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ৪০ থেকে ৫০ জনকে নিয়ে শুরু হবে অনুষ্ঠানের মূল পর্ব। অনুষ্ঠানে সহযোগিতার জন্য এবারও থাকছেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। যারা ওয়াইএলপির বিচারকদের মেধাবী শিক্ষার্থী নির্বাচনে সহযোগিতা করবেন এবং প্রতিযোগীদের সহযোগী উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করবেন। প্রোগ্রাম চলাকালীন তাদের সঙ্গে সময়ে সময়ে যোগ দেবেন কর্পোরেট জগৎ উজ্জ্বল করা মুখগুলো।

প্রতিটি সিজনে ওয়াইএলপির প্রতিযোগীরা বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে বিভিন্ন খ্যাতনামা কোম্পানির সাথে তাদের ব্র্যান্ড সম্পর্কিত কাজে নিযুক্ত হয়ে প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা অর্জন করে। ওয়াইএলপিতে প্রতিযোগীদের একটি নির্দিষ্ট সময় দেওয়া হয় তাদের প্রতিটি টাস্ক সম্পন্ন করার জন্য এবং এরপর তারা উপস্থিত হয় বিচারক প্যানেলের সামনে, যেখানে তারা তাদের আইডিয়া এবং অভিজ্ঞতা তুলে ধরে। প্রত্যেক পর্ব থেকে প্রতিযোগীদের প্রেজেন্টেশনের ওপর বিচার করে পরবর্তী পর্বের জন্য বাছাই করা হয় এবং সব শেষে ৬ থেকে ১০ জনকে বিদেশে পড়াশোনার শিক্ষাবৃত্তি দেওয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ‘এ দেশের তরুণ-তরুণীরা দেশে-বিদেশে তাদের দক্ষতা ও নৈপুণ্য ফুটিয়ে তুলতে সক্ষম, প্রয়োজন একটু সহযোগিতা। চ্যানেল আই সেই চেষ্টা করে যাচ্ছে একটি প্ল্যাটফর্ম গড়ে দিতে। যার মধ্য দিয়ে দেশের তরুণ প্রজন্ম স্ব স্ব ক্ষেত্রে সুদক্ষ নাগরিক হিসেবে ভবিষ্যৎ নেতৃত্বদানে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।’

জনপ্রিয়
আরো পড়ুন