প্রচলিত ভুল

পশ্চিম দিকে পা দিয়ে ঘুমানো বা বসা: কী বলে ইসলাম?

অনেকে পশ্চিম দিকে (কিবলার দিকে) মুখ ফিরিয়ে বা পিঠ ফিরিয়ে পায়খানা-প্রশাব করার নিষেধাজ্ঞায় বর্ণিত হাদিসের ওপর কিয়াস করে পশ্চিম দিকে পা দিয়ে ঘুমানো বা বসাকে নাজায়েজ বলে থাকেন। অথচ এমন কোনো কিছু ধারণা করার কোনো সুযোগ ইসলামে নেই।

প্রিয় ডেস্ক ০৮ জানুয়ারি ২০১৭, ০৬:০৪

ভক্তি থাকলে পাথরেও মুক্তি মেলে, এটি ভুল বিশ্বাস

বস্তুর প্রতি ভালো ধারণা থাকলেই ওই বস্তু থেকে উপকার আসবে, এমন কোনো নিশ্চয়তা নেই। একজন মুসলিম হিসেবে এসব ভ্রান্ত বিশ্বাস এড়িয়ে চলা উচিত।

প্রিয় ডেস্ক ২৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ০৬:৩০

আল্লাহকে খোদা ডাকা, সালাতকে নামাজ বলা যাবে কিনা?

আমাদের সমাজে আল্লাহকে খোদা ডাকা এবং সালাতকে নামাজ বলা নিয়ে কিছু বির্তক প্রচলিত রয়েছে। যেসবি বির্তকের প্রকৃত অর্থে কোনো উপকারিতা নেই। তবে কেন চলছে এসব বির্তক? কেনইবা মানুষ অহেতুক এইসব নিয়ে মাতামাতি করছে?

প্রিয় ডেস্ক ২৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ০৮:২২

সালাম আদান-প্রদানে যে ১২ ভুল করা উচিত নয়

সালাম মানুষের মধ্যে সামাজিক বন্ধন সুদৃঢ় করতে সহযোগিতা করে। সালাম আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে আমরা প্রায়ই অনাকাঙ্ক্ষিত বিভিন্ন ভুল করে থাকি।

প্রিয় ডেস্ক ২২ ডিসেম্বর ২০১৬, ০৫:৫৪

প্রচলিত ভুল : ৭১ কাতার মানুষ জাহান্নামে যাবে, এক কাতার হবে জান্নাতি!

এটি একটি ভুল ধারণা। মূলত: কিয়ামতের দিন মানুষ কয়টি সারিতে বিভক্ত হয়ে আল্লাহর সম্মুখে দাঁড়াবে সে বিষয়ে বিশুদ্ধ কোন বর্ণনা পাওয়া যায় না। তবে সুনানে তিরমিজি ও ইবনে মাজার একটি হাদীসে বর্ণিত, কিয়ামতের দিন কেবল জান্নাতীদেরই ১২০টি কাতার হবে। তাদের মধ্যে ৮০ সারি হবে এই উম্মতের এবং অবশিষ্ট্য ৪০ সারি হবে অন্য সব জাতির।

মিরাজ রহমান ৩০ নভেম্বর ২০১৬, ১৪:১৬

যে নিজেকে চিনলো, সে রবকে চিনলো : এটি কোনো হাদিস নয়

অচিরেই আমি এদেরকে সর্বত্র আমার নিদর্শনসমূহ দেখাবো এবং তাদের নিজেদের মধ্যেও। যাতে এদের কাছে একথা পরিষ্কার হয়ে যায় যে, এ কুরআন যথার্থ সত্য এটাই কি যথেষ্ঠ নয় যে, তোমার রব প্রতিটি জিনিস দেখছেন?

মিরাজ রহমান ১৫ নভেম্বর ২০১৬, ০৩:২৬

যে যোহরের ও আসরের চার রাকাত নামাজ আদায় করলো, সে আটটি জান্নাতের মালিক হয়ে গেলো— এটি কি হাদিস ?

রাসুল [সা.] বলেন, আলাহ পাঁচ ওয়াক্ত নামায ফরয করেছেন। যে ব্যক্তি সুন্দর করে ওযু করবে এবং সময় মত তা (পাঁচ ওয়াক্ত নামায) আদায় করবে, পূর্ণরূপে রুকু, (সিজদা) করবে, খুশু খুযু সহকারে তা আদায় করবে, তার ব্যাপারে আলাহর প্রতিশ্রুতি রয়েছে যে, তিনি তাকে ক্ষমা করবেন। আর যে তা করবে না তার ব্যাপারে আলাহর কোনো প্রতিশ্রুতি নেই; তাকে ক্ষমাও করতে পারেন আবার আযাবে গ্রেফতার করতে পারেন। (সুনানে আবু দাউদ, হাদিস ৪২৫)

মাওলানা মনযূরুল হক ৩১ মে ২০১৬, ০৩:২৯

মসজিদে কথা বললে ফেরেশেতারা বলেন, হে আল্লাহর দুশমন তুই চুপ কর— এটি কি হাদিস ?

এক ভাই প্রশ্ন পাঠিয়েছেন, এটি হাদীস কি না। কাউকে তিনি এটিকে হাদীস হিসেবে বলতে শুনেছেন। এটি হাদীস নয়; হাদীসের কিতাবসমূহে এটা পাওয়া যায় না। এ বিষয়ক আরেকটি জাল বর্ণনা হলো- ‘‘মসজিদে (দুনিয়াবী) কথাবার্তা নেকিকে এমনভাবে খতম করে, যেমন আগুন কাঠকে জ্বালিয়ে ভস্ম করে।’’

মাওলানা মনযূরুল হক ৩০ মে ২০১৬, ০৪:০৩

প্রচলিত ভুল : রাতে নখ বা চুল কাটা যাবে না

রাতে নখ, চুল ইত্যাদি কাটতে নাই। রাতে নখ, চুল ইত্যাদি কাটতে নেই; এমন বিশ্বাস বিভিন্ন এলাকায় রয়েছে। ইসলামী শরীয়াতে রাতে নখ, চুল ইত্যাদি কাটতে কোন বিধি-নিষেধ নেই।

মুফতি মুনিরুল ইসলাম ১৯ মে ২০১৬, ০৩:২৭

প্রচলিত কুসংস্কার : পরীক্ষা দিতে যাওয়ার আগে ডিম খাওয়া যাবে না

পরীক্ষা দিতে যাওয়ার পূর্বে ডিম খাওয়া যাবে না। তাহলে পরীক্ষায় ডিম (গোল্লা) পাবে। আমাদের দেশে প্রচলিত অসংখ্য কুসংস্কারের মধ্যে একটি হলো, পরীক্ষা দিতে যাওয়ার আগে ডিম খাওয়া যাবে না। তাহলে পরীক্ষায় ডিম (গোল্লা) পাবে। এটা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও অমূলক ধারণা মাত্র।

মুফতি মুনিরুল ইসলাম ১৬ মে ২০১৬, ০২:৩৯

loading ...