ময়না হত্যার জট খোলেনি ২০ দিনেও

মানবজমিন প্রকাশিত: ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০

২রা নভেম্বর ইটভাটার পুকুর থেকে উদ্ধার হওয়া জেএসসি পরীক্ষার্থী ময়না দেবনাথ (১৪) হত্যার ঘটনা নিয়ে পুলিশ এখনো অন্ধকারে। হত্যা না আত্মহত্যা এ জট খোলেনি দীর্ঘ ২০ দিনেও। এদিকে ময়না দেবনাথের সহপাঠী ও এলাকাবাসী ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের দাবিতে গতকাল গোড়গ্রাম স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে মানববন্ধন ও সড়ক অবরোধ করে। সকাল সাড়ে ১১টা থেকে টানা ১ঘণ্টা এ মানববন্ধনে আশপাশের বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সহস্রাধিক ছাত্রছাত্রী শিক্ষক ও কর্মচারীর সঙ্গে যোগ দেয় এলাকার শত শত মানুষ। মানববন্ধন ও সড়ক অবরোধের কারণে নীলফামারী-দেবীগঞ্জ সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় ময়না হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানিয়ে বক্তৃতা করেন- গোড়গ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি জাহেদ আলী খান, ইউপি চেয়ারম্যান রেয়াজুল ইসলাম, স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি তরিকুল ইসলাম গোলাপ, প্রধান শিক্ষক গোপাল চন্দ্র রায়, আতিয়ার রহমান, হামিদুর রহমান, অভিভাবক জসিম উদ্দিন খান, জাকির হোসেন ও জেএসসি পরীক্ষার্থী ইশিতা বেগম প্রমুখ। বক্তারা মামলা তদন্তে সিআইডি অথবা পিবিআইয়ের সাহায্য কামনা করেন। উল্লেখ্য, গত ১লা নভেম্বর সন্ধ্যায় বাড়ি থেকে নিখোঁজ হওয়া জেএসসি পরীক্ষার্থী ময়না দেবনাথের লাশ পরের দিন বাড়ি থেকে সামান্য দূরের একটি ইটভাটির পুকুর থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। সদর উপজেলার গোড়গ্রাম ইউনিয়নের যুগিপাড়া গ্রামের আবুল দেবনাথের মেয়ে ও গোড়গ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের জেএসসি পরীক্ষার্থী ময়না দেবনাথ। ময়নার মা মালতি দেবনাথ সে সময় সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, ১লা নভেম্বর সন্ধ্যায় ময়না ক্ষেত থেকে হাঁস নিয়ে বাড়ি আসে এবং টিউবওয়েলে হাতমুখ ধুঁতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। রাতে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তার কোনো হদিস না পেলেও পরেরদিন সকালে বাড়ি থেকে সামান্য দূরে জনৈক অফসের আলী ঠাকুরের ইটভাটা সংলগ্ন পুকুরে ময়নার নিথর দেহ দেখতে পায় স্থানীয় লোকজন। থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে নেয়। স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, ভাটায় কর্মরত জনৈক ব্যক্তির সঙ্গে ময়নার সখ্যতা ছিল। হরহামেশাই সে মোবাইল ফোনে তার সঙ্গে কথা বলতো। নিহত ময়নার গলায় দাগ ছিল বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়। এলাকাবাসীর ধারণা তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে লাশ পুকুরে ফেলে দেয়া হয়। এ ব্যাপারে গতকাল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, তদন্ত রিপোর্ট না পাওয়ায় ঘটনার প্রকৃত কারণ উদঘাটন এখনো সম্ভব হয়নি। অপরদিকে ময়না দেবনাথের পরিবারের পক্ষ থেকেও কাউকে সন্দেহ না করায় ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা তা নিয়ে ধোয়াশা কাটেনি। ময়না দেবনাথ সদ্য শেষ হওয়া জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়ার কথা ছিল।
সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন
আরও