ইতিহাস গড়ে স্বর্ণ জয় সালমাদের

মানবজমিন প্রকাশিত: ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০০

পাশের আরচারি স্টেডিয়াম থেকে যখন একের পর এক সোনা জয়ের খবর আসছিলো, ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সোনার পদকের লড়াইয়ে ধুঁকছিল বাংলাদেশ নারী দল। সর্ব সাকুল্যে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ৯১ রান।  ব্যাটিংয়ে হতাশার সংগ্রহের পর বল হাতে সালমা-নাহিদা-ফাইমারা ম্যাচটা টেনে নেন শেষ ওভার পর্যন্ত। শেষ ওভারে কাজটা সারেন জাহানারা আলম। ওই ওভারে লঙ্কানদের প্রয়োজন ছিল ৭ রান। দেশসেরা পেসার জাহানারার করা ওভার থেকে এসেছে কেবল চারটি সিঙ্গেল। শেষ বলে শ্রীলঙ্কার প্রয়োজন ছিল ৩ রান। জাহানারা দেননি কোনো রান। টান টান উত্তেজনার এ ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে শেষ পর্যন্ত ২ রানে হারিয়ে এসএ গেমসে মেয়েদের ক্রিকেটে প্রথম আসরের সোনা জিতলো বাংলাদেশের মেয়েরা। এদিন পোখারা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনালে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশের শুরুটায় ছিল না খুব অস্বস্তির। ওপেনার আয়েশা রহমান যদিও ফিরেছিলেন ২ রানে। তবে আরেক ওপেনার মুর্শিদা খাতুন ও তিনে নামা সানজিদা ইসলাম দলকে রেখেছিলেন পথে। ৬ ওভারে রান ছিল ৩৬। এরপরই এক ওভারের ঝড়ে এলোমেলো ইনিংস। উমেশা থিমাশিনির এক ওভারেই ১ উইকেটে ৩৬ থেকে দলের স্কোর হয়ে যায় ৫ উইকেটে ৩৬। অধিনায়ক সালমা খাতুনও পারেননি দলের ত্রাতা হতে। সপ্তম উইকেটে নিগার সুলতানা ও ফাহিমা খাতুন কিছুটা উদ্ধার করেন দলকে। ১৫ রান করে বিদায় নেন ফাহিমা। নিগার সুলতানার ৩৮ বলে অপরাজিত ২৯ রানে দল শেষ পর্যন্ত করতে পারে ৯১। ছোট পুঁজি নিয়ে বাংলাদেশের বোলারদের শুরুটা ছিল দারুণ। জাহানারা, সালমারা শুরু থেকেই চেপে ধরেন লঙ্কানদের। পাওয়ার প্লের ৬ ওভার শেষে তাদের রান ছিল ৩ উইকেটে ১৫। সেই ধাক্কা সামলে লঙ্কানদের এগিয়ে নিচ্ছিলেন অধিনায়ক মাদাভি। ৩৩ বলে ৩২ রান করা ব্যাটারকে থামান জাহানারা। তার পরও হাল ছাড়েনি শ্রীলঙ্কা। লিহিনি আপসারা, নিলাকশানা সান্দামানি চালিয়ে যান লড়াই। শেষ ২ ওভারে লঙ্কানদের প্রয়োজন ছিল ১১ রান। ১৯তম ওভারে বাঁহাতি স্পিনার নাহিদা আক্তার একটি রানও দেননি, উইকেট নেন একটি। কিন্তু বাই থেকে তবু চার রান পেয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। শেষ ওভারে দারুণ বোলিংয়ে পার্থক্য গড়ে দিলেন জাহানারা। রান আউট হলেন মূল বাধা হয়ে থাকা লিহিনি। সোনার হাসিতে মাঠ ছাড়ল বাংলাদেশ। বাংলাদেশের হয়ে নাহিদা দু’টি উইকেট নেন। ম্যাচ সেরাও হয়েছেন এ বোলার। ম্যাচের পার্থক্য গড়ে দিয়ে জয় পাইয়ে দেয়া জাহানারা বলেন,  ‘সাত রানের প্রয়োজন হলেও আমি পাঁচ রান টার্গেট ধওে নিয়ে বল করেছি। আমার লক্ষ্য ছিল তিন চারটি সিঙ্গেলের বেশি দেবো না। সেটা করতে পেরে ভালো লাগছে’। সালমা খাতুনের অধিনায়কত্বেই এশিয়া কাপের শিরোপা জিতে ইতিহাস গড়েছিল বাংলাদেশ। সাউথ এশিয়ান গেমসে প্রথমবারের মতো অন্তর্ভুক্ত হওয়া ক্রিকেটে তার নেতৃত্বেই সোনা জিতলো বাংলাদেশ। দুটি ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে সালমা বলেন, আসলে আমাদের প্রত্যাশা ছিল সোনা জেতা। সেটা করতে পেরে, ইতিহাসের অংশ হতে পেরে ভালো লাগছে। ম্যাচ নিয়ে সালমা বলেন, সকালে উইকেটের কারণেই আমাদের সংগ্রহটা বেশি হয়নি। তারপরেও আমাদের বিশ্বাস ছিল আমরা যদি ৯১ রানে অলআউট হতে পারি, তবে ওদের কেন আরো কম রানে আটকাতে পারবো না। এই বিশ্বাসেই ম্যাচটা জিতেছি আমরা।
সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন
আরও