অভিনেতা থেকে নেতা

সময় টিভি প্রকাশিত: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৯:০৮

ভারতের জনপ্রিয় অভিনেতাদের মধ্যে অন্যতম সদ্য প্রয়াত তাপস পাল। তার অভিনয় দর্শকের হৃদয় ছুঁয়ে যায়। শুধু অভিনয়ের মঞ্চে নয়, রাজনীতির মঞ্চেও তিনি নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন। জয় করেছিলেন কৃষ্ণনগরের জনগণের হৃদয়ও। পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় জন্ম নেয়া এ অভিনেতা ২০০৯ সালের ভারতীয় সাধারণ নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের টিকিট নিয়ে কৃষ্ণনগর থেকে এমপি নির্বাচিত হন। সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে অভিনেতা থেকে নেতায় পরিণত হন। যদিও রাজনীতিতে জড়িয়ে কখনো কখনো সংবাদের শিরোনামও হতে হয়েছে এ অভিনেতাকে। গত  ২০১৪ সালে কেন্দ্রীয় সরকারের নির্বাচনের কিছুদিন আগে একটি নির্বাচনী প্রচার সভায় বক্তৃতা দিতে গিয়ে তাপস পাল বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন। ওই সভায় তিনি নিজেকে ‘চন্দননগরের মাল’ বলে পরিচয় দেন এবং জানান যে তিনি পকেটে ‘মাল’ নিয়ে ঘুরে বেড়ান। এছাড়া তিনি ছেলে পাঠিয়ে বিরোধী পক্ষের সমর্থকদের ধর্ষণ করে দেয়ার ইচ্ছাও প্রকাশ করেন। পরে এ নিয়ে বিতর্ক তৈরি হলে প্রকাশ্যে ক্ষমাও চান তাপস পাল। রাজনীতির মঞ্চে জড়িয়ে জনগণের বিরাগভাজন হলেও তার সু-অভিনয় দর্শকের হৃদয় ছুঁয়ে যাবে যুগের পর যুগ। গুরুদক্ষিণা সিনেমায় গুরুর প্রতি তার যে ভক্তি-শ্রদ্ধা তা শিক্ষণীয় হযে থাকবে সব শিষ্যের কাছে। অভিনয় গুণে দর্শকের মণিকোঠায় ঠাঁই পাওয়া তাপস পালও দেহাবসানের সঙ্গে সঙ্গে ফুরিয়ে যাবেন না। তিনি অমর হয়ে থাকবেন তার অভিনয়ের মাঝে।  ভারতের এ জনপ্রিয় অভিনেতা মঙ্গলবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) ভোরে মুম্বাইয়ের একটি বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬১ বছর। তার মৃত্যুতে শোকে স্তব্ধ কলকাতার পুরো সিনেমাপাড়া। ছোটবেলা থেকেই অভিনয়ের প্রতি বেশ আগ্রহী ছিলেন তাপস পাল। কলেজে পড়ার সময়ে নজরে পড়েন পরিচালক তরুণ মজুমদারের। মাত্র ২২ বছর বয়সে মুক্তি পায় প্রথম ছবি দাদার কীর্তি।
সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন
এই সম্পর্কিত
আরও