FAQs

Payments / Transactions (6)

একাধিক কারণে আপনার পেমেন্টটি ফেইলড/ডিক্লাইন হতে পারে।

  • অ্যাকাউন্টে পর্যাপ্ত অর্থ না থাকা
  • অ্যাকাউন্ট বা সংশ্লিষ্ট কার্ড সাসপেন্ড বা ফ্রিজ থাকা
  • অ্যাড্রেস ভেরিফিকেশন ফেইল করা
  • অনুমোদিত নয় এমন দেশের পেমেন্ট করা – ইত্যাদি কারণে আপনার পেমেন্টটি বাতিল হতে পারে।
  • এছাড়া কোনো পেমেন্টকে সন্দেহজনক মনে হলেও লেনদেনটি বাতিল হতে পারে।

কোনো পেমেন্ট একবার বাতিল হলে বারবার চেষ্টা না করে সঙ্গে সঙ্গে প্রিয় পে’র সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

প্রিয় পে-তে লগ ইন করার পর আপনার ড্যাশবোর্ডে ট্রানজেকশন অপশনে ক্লিক করবেন। এরপর আপনি কোন অ্যাকাউন্টের হিস্টরি জানতে চান, সেটি সিলেক্ট করুন এবং সময়সীমা উল্লেখ করুন। আপনি আপনার ট্রানজেকশন হিস্টরি পেয়ে যাবেন। চাইলে ডাউনলোড করেও নিতে পারবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এটি যেহেতু আমেরিকার একটি কার্ড, তাই এর সাথে নিরাপত্তা সংক্রান্ত এড্রেস ভেরিফিকেশন সার্ভিস (এভিএস) যুক্ত করা হয়েছে। এর ফলে, আপনি যখন অনলাইনে কিছু কেনাকাটা করবেন, অনেক মার্চেন্ট যেমন ফেসবুক, গুগল, অ্যামাজান ইত্যাদি এভিএস পরীক্ষা করতে পারে।

যেই মার্চেন্টে আপনি কার্ড ব্যবহার করবেন, সেখানে আপনার অ্যাকাউন্টের ঠিকানা এবং প্রিয় কার্ডের ঠিকানা একই হতে হবে। এই সমস্যা সমাধানের জন্য প্রতিটি ইউজারের প্রোফাইলে একটি ভার্চুয়াল বিলিং অ্যাড্রেস যুক্ত করা হয়েছে। সেই অ্যাড্রেসটি বিলিং অ্যাড্রেস হিসেবে ব্যবহার করলেই এভিএস প্রবলেম সমাধান হয়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

প্রিয় পে পারসোনাল অ্যাকাউন্টে আপনি দৈনিক ৫,০০০ ডলার এবং মাসিক লিমিট ১০,০০০ ডলার খরচ বা পেমেন্ট করতে পারবেন। আপনার কার্ডের খরচ বা পেমেন্ট প্রিয় পে অ্যাকাউন্টের অন্তর্ভূক্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম, বিশেষ করে ফেসবুকে প্রথমবার পেমেন্ট করতে গেলে অথবা কার্ড এড করতে গেলে ১-২ ডলার পেন্ডিং অবস্থায় থাকে। অ্যাকাউন্ট ও কার্ড ভেরিফিকেশনের জন্য প্ল্যাটফর্মগুলো এমনটা করে থাকে এবং ২-৩ কর্মদিবসের মধ্যেই সেই অর্থ আপনার অ্যাকাউন্টে ফেরত চলে আসবে। এই পেন্ডিং পরবর্তীতেও মাঝে মাঝে হতে পারে। তবে ফেসবুকের ক্ষেত্রেই এটি বেশি হয়। কোনো লেনদেনের যথার্থতা নিশ্চিত করার জন্য ফেসবুক মাঝে মাঝে পেমেন্ট পেন্ডিং করে রাখে। তবে সেটি আবার ২-১ কর্মদিবসের মধ্যে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সেটেলও হয়ে যায়। তাই কোনো পেমেন্ট পেন্ডিং থাকলে দুশ্চিন্তা করার কিছু নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

না। এই মুহূর্তে এই ধরনের কোনো সার্ভিস নেই। তবে অদূর ভবিষ্যতে যুক্ত হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Priyo Card (2)

একাধিক কারণে আপনার পেমেন্টটি ফেইলড/ডিক্লাইন হতে পারে।

  • অ্যাকাউন্টে পর্যাপ্ত অর্থ না থাকা
  • অ্যাকাউন্ট বা সংশ্লিষ্ট কার্ড সাসপেন্ড বা ফ্রিজ থাকা
  • অ্যাড্রেস ভেরিফিকেশন ফেইল করা
  • অনুমোদিত নয় এমন দেশের পেমেন্ট করা – ইত্যাদি কারণে আপনার পেমেন্টটি বাতিল হতে পারে।
  • এছাড়া কোনো পেমেন্টকে সন্দেহজনক মনে হলেও লেনদেনটি বাতিল হতে পারে।

কোনো পেমেন্ট একবার বাতিল হলে বারবার চেষ্টা না করে সঙ্গে সঙ্গে প্রিয় পে’র সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এটি যেহেতু আমেরিকার একটি কার্ড, তাই এর সাথে নিরাপত্তা সংক্রান্ত এড্রেস ভেরিফিকেশন সার্ভিস (এভিএস) যুক্ত করা হয়েছে। এর ফলে, আপনি যখন অনলাইনে কিছু কেনাকাটা করবেন, অনেক মার্চেন্ট যেমন ফেসবুক, গুগল, অ্যামাজান ইত্যাদি এভিএস পরীক্ষা করতে পারে।

যেই মার্চেন্টে আপনি কার্ড ব্যবহার করবেন, সেখানে আপনার অ্যাকাউন্টের ঠিকানা এবং প্রিয় কার্ডের ঠিকানা একই হতে হবে। এই সমস্যা সমাধানের জন্য প্রতিটি ইউজারের প্রোফাইলে একটি ভার্চুয়াল বিলিং অ্যাড্রেস যুক্ত করা হয়েছে। সেই অ্যাড্রেসটি বিলিং অ্যাড্রেস হিসেবে ব্যবহার করলেই এভিএস প্রবলেম সমাধান হয়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *