হালাল-হারাম

পাঁচ পদ্ধতিতে মারা যাওয়া প্রাণীর মাংস খাওয়া হারাম

আর কখনো যদি জীবিত পশুর শরীর থেকে কোনো অংশ কেটে নেওয়া হয়, তাহলে সেটা খাওয়া সকল ইমামদের মতেই হারাম।

মিরাজ রহমান ২৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ০৫:০৩

কোরআনের মূলনীতির আলোকে হালাল ও হারাম প্রাণী

কোরআন আমাদের একটি মূলনীতি বলে দিয়েছে তাহলো ‘তায়্যিবাত’ পাক পবিত্র গবাদি পশুর গোশত হালাল আর নাপাক ও কুস্বভাবের পশুর গোশত হারাম। পবিত্র কুরআনে আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন, তাদের জন্য পবিত্র পশুর গোসত হালাল আর অপবিত্র পশুর গোশত হারাম (সুরা আরাফ : আয়াত ১৫৭)

মিরাজ রহমান ০৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ০৪:২৭

হারামের উপায় উপকরণও হারাম

একইভাবে মূলত নিষিদ্ধ করার বিষয় হলো ব্যাভিচার। আর এই ব্যভিচারের পথকে রোধ করার জন্যই নারী-পুরুষের নির্জন বৈঠক ও পর্দাহীনতাকেও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। অনুরূপভাবে মূল লক্ষ্য ছিলো মদ ও জুয়াকে নিষিদ্ধ করা কিন্তু যেসব উপকরণ মদ-জুয়া ও সুদকে উৎসাহিত করে সেগুলোকেও হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আইলাইহি ওয়াসাল্লাম লানতের যোগ্য বলে ঘোষণা দিয়েছেন।

মিরাজ রহমান ০৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ০২:১০

বিবাহ বৈধ এমন নারীর সাথে করমর্দন করা যাবে কিনা?

নিঃসন্দেহে এটা হাতের যিনা। যেমন, রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “দুচোখ যিনা করে, দুহাত যিনা করে, দুপা যিনা করে এবং লজ্জাস্থানও যিনা করে”। [মুসনাদে আহমদ, হাদীস নং ৩৯১২; সহীহুল জামে, হাদীস নং ৪১২৬]

ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ ২৯ আগস্ট ২০১৬, ০৩:২৬

স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের মাঝে যিহার কী এবং কোন কোন কথায় যিহার হয়?

ইসলাম রমযান মাসে দিনের বেলায় স্বেচ্ছায় সহবাসে সিয়াম ভঙ্গের কাফ্ফারা, ভুলক্রমে হত্যার কাফ্ফারা যেভাবে দিতে বলেছে, যিহারের জন্যও ঠিক একইভাবে কাফ্ফারা দিতে বলেছে। কাফ্ফারা পরিশোধ না করা পর্যন্ত যিহারকারী স্ত্রীকে স্পর্শ করতে পারবে না।

ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ ২৪ আগস্ট ২০১৬, ০৪:৩৩

পুরুষের মাঝে সুগন্ধি মেখে নারীর চলাফেরা : কী বলে ইসলাম

বিয়ে-শাদীর অনুষ্ঠানে, হাটে-বাজারে, যানবাহনাদিতে, নানা ধরনের মানুষের সমাবেশে, এমনকি রমযানের রাতে মসজিদে আসার সময় তথা সর্বত্র নারীরা যে সুগন্ধিযুক্ত প্রসাধনী আতর, সেন্ট, আগর, ধূনা, চন্দনকাঠ ইত্যাদি নিয়ে যাতায়াত করছেন। অথচ শরীয়ত তো শুধু নারীদের জন্য সে আতরের অনুমোদন দিয়েছে যার রঙ হবে প্রকাশিত পক্ষান্তরে গন্ধ হবে অপ্রকাশিত ।

ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ ২২ আগস্ট ২০১৬, ০৪:৫৩

ইসলামের দৃষ্টিতে ব্যভিচারের পরিচয় ও ভয়াবহ পরিণাম

অনেকে ব্যভিচার বা পতিতাবৃত্তিকে পেশা হিসাবে গ্রহণ করে। অথচ পতিতাবৃত্তি থেকে অর্জিত আয় নিকৃষ্ট উপার্জনাদিরই একটি। যে পতিতা তার ইজ্জত বেচে খায় সে মধ্যরাতে যখন দোআ কবুলের জন্য আকাশের দরজা উন্মোচিত হয় তখন দোআ কবুল হওয়া থেকে বঞ্চিত হয়।

ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ ১৫ আগস্ট ২০১৬, ০৬:২৬

সালাতে ধীরস্থিরতা পরিহার করালে কী হয়?

যায়েদ ইবন ওয়াহাব থেকে বর্ণিত, একবার হুযায়ফা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু জনৈক ব্যক্তিকে দেখতে পেলেন যে, সে রুকু-সাজদাহ পূর্ণাঙ্গরূপে আদায় করছে না। তিনি তাকে বললেন, ‘তুমি সালাত আদায় কর নি। আর এ আবস্থায় যদি তুমি মারা যাও, তাহলে যে দীনসহ আল্লাহ তা‘আলা মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে পাঠিয়েছিলেন তুমি তার বাইরে মারা যাবে”

ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ ০৩ আগস্ট ২০১৬, ০৪:১৭

পাপাচারী ও ফাসিকদের সঙ্গে উঠাবসা করা সম্পর্কে কী বলে ইসলাম

সুতরাং ফাসিক-মুনাফিকদের সঙ্গে আত্মীয়তার সম্পর্ক যত গভীরই হউক কিংবা তাদের সাথে সমাজ-সামাজিকতায় যতই মজা লাগুক এবং তাদের কণ্ঠ যতই মধুর হউক তাদের সঙ্গে উঠাবসা করা বৈধ নয়। হ্যাঁ, যে ব্যক্তি তাদেরকে ইসলামের দাওয়াত প্রদান করে, তাদের বাতিল আকীদার প্রতিবাদ করে কিংবা তাদেরকে অন্যায় থেকে নিষেধ করার জন্য তাদের নিকট গমনাগমন করে সে উক্ত নির্দেশের আওতাভুক্ত হবে না।

ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ ৩১ জুলাই ২০১৬, ০৩:০৬

আল্লাহ ছাড়া অন্য বস্তুকে কল্যাণ-অকল্যাণের মালিক মনে করলে কী হবে?

অনেকে বদ নযর এড়ানোর জন্য বাচ্চা ও বড়দের গলায় এসব ঝুলিয়ে দেয়, শরীরের অন্যত্রও বেঁধে রাখে (যেমন গলা, হাত ও কোমরে)। গাড়ী-বাড়ীতেও তাবীয ও দো‘আ-কালাম লিখিত কাগজ ঝুলিয়ে রাখার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। এতে গাড়ী-বাড়ী দুর্ঘটনার হাত থেকে বেঁচে যায় বলে তাদের বিশ্বাস।

ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ ৩০ জুলাই ২০১৬, ০৪:৪০

loading ...