ছবি সংগৃহীত

খালেদা-তারেককে বাদ দিয়ে আসছে নতুন বিএনপি!

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বাদ দিয়ে নতুন বিএনপি গড়ার ঘোষণা দিয়েছেন কামরুল হাসান নামের এক ব্যক্তি।

priyo.com
লেখক
প্রকাশিত: ১০ জানুয়ারি ২০১৫, ১৫:৩০ আপডেট: ১৮ এপ্রিল ২০১৮, ০৪:০৮
প্রকাশিত: ১০ জানুয়ারি ২০১৫, ১৫:৩০ আপডেট: ১৮ এপ্রিল ২০১৮, ০৪:০৮


ছবি সংগৃহীত
(প্রিয়.কম) বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বাদ দিয়ে নতুন বিএনপি গড়ার ঘোষণা দিয়েছেন কামরুল হাসান নামের এক ব্যক্তি। তিনি এর আগে শাহেদা ওবায়েদের নেতৃত্বাধীন গড়ব বাংলাদেশ নামে একটি সংগঠনের মুখপাত্র ছিলেন। শুক্রবার সকালে গুলশানের লেকশোর হোটেলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে কামরুল হাসান একাই বক্তব্য দেন। কামরুল হাসান তার বক্তৃতায় দাবি করেন, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের পরিচালনায় থাকা বিএনপি অবৈধ। জিয়াউর রহমানের বিএনপিকে ফেরত আনতে নতুন বিএনপি গড়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ১৬ জানুয়ারি সংবাদ সম্মেলন করে এর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হবে। তখন জানানো হবে এর সঙ্গে আর কারা আছেন। কামরুল হাসান বলেন, তিনি শুধু দল গোছানোর কাজ করেছেন। এর সঙ্গে আর কারা আছেন তা তিনি প্রকাশ করতে চাচ্ছেন না। তবে তিনি দাবি করেন, ওই উদ্যোগে সরকারি কোনো সংস্থার উৎসাহ বা যোগসাজশ নেই। কামরুল হাসান বলেন, স্বল্প সময়ের মধ্যে শীর্ষস্থানীয় নেতাদের নিয়ে ‘আসল বিএনপিকে’ দেখা যাবে। আগামী ছয় মাসের মধ্যে সব পর্যায়ে দলীয় কাউন্সিল করতে কাজ শুরু করা হবে। তৃণমূল থেকে সব পর্যায়ে নেতৃত্ব আসবে গণতন্ত্রের মধ্য দিয়ে। নিজেকে একজন সাংবাদিক, গবেষক ও রাজনীতিক হিসেবে পরিচয় দিয়ে কামরুল হাসান বলেন, আমি একজন সাধারণ। দলটির ক্রান্তিলগ্নে ও ‘অসুস্থতা’কে ঠিক করতে সামান্য ঔষধওয়ালা। রোগ সেরে গেলে ও দেশের মানুষের জন্য কিছু করতে পারলেই জ্যেষ্ঠ যোগ্য নেতৃত্বের হাতে যাবে শহীদ জিয়ার সেই স্বপ্নের দল বিএনপি। তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান শাসন রীতিতে গণতন্ত্রকে অর্থবহ করার জন্য নিজেকে সঁপে দিয়েছিলেন, সেই দলে আজ ব্যক্তিকেন্দ্রিক রাজনীতি পরিলক্ষিত হচ্ছে যা দলের সংবিধান পরিপন্থী। মুখ বুজে তা সইতে হচ্ছে দলের সকল নেতাদের। এ থেকে আমাদের উঠে আসতে হবে। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, হামলা, ভাংচুর, ও জ্বালাও-পোড়াওয়ের রাজনীতি করছে বলে মন্তব্য করেন কামরুল। টঙ্গীতে মুসলমানের অন্যতম বৃহৎ ধর্মীয় সম্মিলন বিশ্ব ইজতেমার সময়ে অবরোধ চালিয়ে যাওয়ার কঠোর সমালোচনাও করেন তিনি। নতুন বিএনপি গড়ার এ উদ্যোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান বলেন, আমি অর্থমন্ত্রীর ভাষায় বলতে চাই, “অল আর রাবিশ”। লেকশোর হোটেল কর্তৃপক্ষ জানায়, তাদের ইকেবানা হলরুমটি অনুষ্ঠানের জন্য ৪০ হাজার টাকায় ভাড়া করেন জাভেদ ওমর রাব্বি নামের এক ব্যক্তি। তিনি গণমাধ্যমে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে নিজেকে ‘বিএনপির সংকটকালীন দলের সদস্য’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। জাভেদ ওমর বলেন, তিনি নতুন বিএনপির দপ্তর সমন্বয়কের কাজ করছেন। তিনি ব্যক্তিজীবনে কী করেন, সে সম্পর্কে কিছু বলতে রাজি হননি। গতকাল দুপুরে খোঁজ নিতে গেলে লেকশোর হোটেলের একাধিক কর্মী বলেন, ওই ঘোষণা অনুষ্ঠানে দর্শকসারিতে লুঙ্গি পরা ও স্যান্ডেল পায়ে শতাধিক ব্যক্তি বসা ছিলেন। কেউ কেউ ছেঁড়া লুঙ্গি পরা ছিলেন। একজন নিরাপত্তারক্ষী বলেন, দেখে মনে হয়েছে, বস্তিবাসী বা ভ্যান-রিকশাওয়ালাদের আনা হয়েছে। অবশ্য কামরুল হাসান দাবি করেন, অনুষ্ঠানে যাঁরা ছিলেন, সবাই দলের কর্মী।