ছবি সংগৃহীত

দ্রুত ওজন কমাতে সাহায্য করবে যে ৫ ধরনের চা

ক্যালোরি ক্ষয়ের জন্য যে রাসায়নিক ইজিসিজি দরকার,তা পাওয়া যায় সবুজ চায়ে। দিনে প্রায় ৭০ ক্যালোরি পর্যন্ত ক্ষয় করার ক্ষমতা রাখে সবুজ চা। গবেষকরা বলেন,বছরে ১৫ পাউনড ওজন কমাতে চাইলে কোমল পানীয়ের বদলে দৈনিক ১-২ কাপ সবুজ চা পান করলেই যথেষ্ট। গোলাপের চা পৃথিবীর প্রাচীনতম মসলা চা। ওজন কমানো ছাড়াও এই চা শরীরের টক্সিন দূর করে এবং ত্বককে উজ্জ্বল ও কমনীয় করে। পুদিনার চা-ও ওজন কমাতে অত্যন্ত কার্যকর।

Kaniz DIya
লেখক
প্রকাশিত: ০২ ডিসেম্বর ২০১৩, ০৩:৫৪ আপডেট: ২৪ মার্চ ২০১৮, ১৫:১৮
প্রকাশিত: ০২ ডিসেম্বর ২০১৩, ০৩:৫৪ আপডেট: ২৪ মার্চ ২০১৮, ১৫:১৮


ছবি সংগৃহীত
চা পান প্রতিদিনের রুটিনে পরিনত করেননি এমন মানুষ কমই আছেন। সকালে উঠে এক কাপ ধোঁয়া ওঠা চা শরীরকে ঝরঝরে করে তোলে সারাদিনের জন্য। বিকেলের আড্ডায় চায়ের প্রাধান্য সবখানেই দেখা যায়। শুধুমাত্র শরীরের জড়তা কাটিয়েই চায়ের গুনাগুন শেষ হয়ে যায় না। চায়ের মধ্যে রয়েছে স্ট্রোক, বাত, দাঁতের ক্ষয় রোধ এবং এমনকি ক্যান্সারের মত রোগকে রুখে দেবার মতন ক্ষমতা। চায়ের রয়েছে আরও একটি গুন। সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা চায়ে এমন একটি যৌগ খুঁজে পেয়েছেন যেটি চর্বি শোষণের ক্ষমতা রাখে। এর অর্থ চায়ের এতসব গুনাগুনের সাথে আরও একটি গুন যোগ হল, আর তা হচ্ছে শরীরের চর্বি শোষণ করে আপনাকে স্লিম রাখার ক্ষমতা। আসুন চিনে নেয়া যাক সেই ৫ ধরনের চা যা আপনাকে স্লিম রাখতে সাহায্য করবে।

পুদিনা চা

ক্যালোরি দ্রুত ক্ষয় করতে সহায়ক আরেকটি চা হচ্ছে পুদিনার চা বা মেন্থল চা। এই চায়ের মধ্যে রয়েছে পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন বি যা আপনার ইমিউন সিস্টেমের জন্য অত্যন্ত জরুরি। ছোট বড় সবাই এই চা পান করতে পারেন, হজমের সমস্যার দূর করতেও অত্যন্ত কার্যকর। খুব সহজেই পুদিনার চা তৈরি করতে পারেন। তাজা হলে তো চমৎকার, তাজা পাতা সবসময় না পেলেও সমস্যা নেই। কয়েক টেবিল চামচ শুকনো পুদিনা পাতা ফুটন্ত গরম পানিতে চার/পাচ মিনিট জাল দিয়ে নিন। এর পর এতে প্রয়োজন মত মধু মিশিয়ে নিন। এই চা ঠাণ্ডা ও গরম দুই ভাবেই পান করা যায়। পুদিনার চা খুবই হালকা একটি পানীয় যা নিমিষেই আপনাকে চাঙ্গা করে তুলবে, এছাড়াও আপনার শরীরের চর্বি শোষণ করে স্লিম হতে সাহায্য করবে।

রাশি মৌরির চা

রাশি মৌরি, একটি ছোট্ট চিরহরিৎ গাছ। এটি প্রধানত চীনের স্থানীয় ফল। পরিপাক যন্ত্রণার যেমন পেট খারাপ, ডায়রিয়া, বমি বমি ভাব ইত্যাদির চিকিত্সার জন্য এই ফলটি ব্যবহার করা হয়। রাশি মৌরির চা হজমের সকল সমস্যার উপশম করে। হজমের সমস্যা সমাধান করে এই চা আপনাকে শারীরিক দিক থেকে প্রতিটি খাদ্য থেকে পুষ্টি যোগানোতে সহায়তা করে। এতে করে শারীরিক গঠন ঠিক হয়। রাশি মৌরির চা তৈরি অত্যন্ত সহজ। রাশি মৌরি ফলটির একটি সম্পূর্ণ শুঁটি থেকে এই চা তৈরি করা হয়ে থাকে। একটি সম্পূর্ণ শুঁটি ১০ মিনিটের জন্য এক কাপ গরম পানিতে ডুবিয়ে রাখা হয়। ১০ মিনিট পরে এতে মধু মিশিয়ে নেয়া হয়। ব্যস তৈরি হয়ে গেল স্বাস্থ্যকর মৌরি চা।

সবুজ চা (গ্রিন টী)

গবেষণায় দেখা যায় শরীরের বিপাক ক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করার জন্য যে রাসায়নিক ইজিসিজি দরকার তা পাওয়া যায় সবুজ চায়ে। এই রাসায়নিক মানুষের শরীরের ক্যালোরি ক্ষয়ে সহায়তা করে। দিনে প্রায় ৭০ ক্যালোরি পর্যন্ত ক্ষয় করার ক্ষমতা রাখে সবুজ চা। গবেষকরা বলেন, যদি আপনি এক বছরে ৫০,০০০ ক্যালোরি ক্ষয় করতে অর্থাৎ ১৫ পাউনড ওজন কমাতে চান, তবে যে ��োমল পানীয় পান করেন তার বদলে ১-২ কাপ সবুজ চা পান করুন। সবুজ চা বছরে ৫০,০০০ ক্যালোরি (১৫ পাউন্ডের বেশি ওজন )ক্ষয় করতে সক্ষম। এছাড়াও সবুজ চা শরীরের অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমূহের স্তর ঠিক রাখে। ক্যান্সার সেল উৎপাদনকে নিস্ক্রিয় করতে সবুজ চায়ের ভূমিকা রয়েছে।

ওলং চা

ওলং চা চীনাদের ঐতিহ্যবাহী একটি চা। এটি ক্যামেলিয়া ফুল গাছের পাতা, কুঁড়ি ও ডালপালা থেকে তৈরি বিশেষ ধরনের চা। ওলং চা চিন্তা, দক্ষতা এবং মানসিকতার উন্নতিতে ব্যবহৃত হয়। এটি ক্যান্সার, দাঁতের ক্ষয় , অস্টিওপরোসিস রোগ , এবং হৃদরোগ প্রতিরোধ করতেও ব্যবহৃত হয়। এছাড়াও ইমিউন সিস্টেম উন্নত করতে, স্থুলতা কমাতে, ধমনীতে রক্ত সঞ্চালনের কাজে, উচ্চ কলেস্টেরল কমাতে এই চা বিশেষ ভাবে উপযোগী। স্থুলতা কমাতে এর ভূমিকা সবুজ চায়ের থেকেও বেশি। প্রতিদিন প্রায় ২ কাপ ওলং চা পান করলে স্থুলতা কমবে, ফ্যাট বার্ন হবে।

গোলাপের চা

তাজা গোলাপের পাপড়ি এবং চায়ের কুঁড়ি মিশ্রিত এই গোলাপের চা পৃথিবীর প্রাচীনতম মসলা চা। এই চায়ের রয়েছে মানব দেহের উপর উল্লেখযোগ্য থেরাপিউটিক প্রভাব। এই চা শরীরের টক্সিন দূর করে এবং ত্বককে উজ্জ্বল ও কমনীয় করে। এছাড়া গোলাপের চায়ে বিদ্যমান চা ভিটামিন এ, B3, সি, ডি এবং ই যে কোন ধরনের সংক্রামকের বিরুদ্ধে কাজ করে। এটি কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে এবং ওজন হারাতে সাহায্য করে। এই চা তৈরি করতে আপনার লাগবে কিছু তাজা গোলাপের পাপড়ি ও তাজা চায়ের কুঁড়ি। ফুটন্ত গরম পানিতে তাজা গোলাপের পাপড়ি ও তাজা চায়ের কুঁড়ি ৫-৬ মিনিট জ্বাল দিন। এরপর এতে মধু মিশিয়ে পান করুন। ওজন কমানোর সাথে সাথে এই চা আপনার ত্বকও উজ্জ্বল করবে।

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...