ছবি সংগৃহীত

প্রিয়.কমে বিনিয়োগ করছে সিলিকন ভ্যালির ‘ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল’ (ভিডিও)

বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ইন্টারনেট পোর্টাল ‘প্রিয়.কম’ (priyo.com)-এ বিনিয়োগ করছে যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালি-ভিত্তিক ভেঞ্চার ক্যাপিটাল প্রতিষ্ঠান ‘ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল’। আর এর মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রথম কোনো সিলিকন ভ্যালি-ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান বিনিয়োগ করলো।

রাজিউল হাসান
লেখক
প্রকাশিত: ২৪ নভেম্বর ২০১৪, ০৭:১৮ আপডেট: ২৭ মার্চ ২০১৮, ০৪:০৮
প্রকাশিত: ২৪ নভেম্বর ২০১৪, ০৭:১৮ আপডেট: ২৭ মার্চ ২০১৮, ০৪:০৮


ছবি সংগৃহীত
(প্রিয়.কম) বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ইন্টারনেট পোর্টাল ‘প্রিয়.কম’ (priyo.com)-এ বিনিয়োগ করছে যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালি-ভিত্তিক ভেঞ্চার ক্যাপিটাল প্রতিষ্ঠান ‘ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ইনকরপোরেশন’। আর এর মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রথম কোনো সিলিকন ভ্যালি-ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান বিনিয়োগ করলো। এবিষয়ে সোমবার (২৪ নভেম্বর) ডেইলি স্টার ভবনের এস এ মাহমুদ সেমিনার হল-এ এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক। এছাড়া অন্যান্য অতিথিদের মাঝে ছিলেন ফেনক্স-এর পক্ষ থেকে প্রতিষ্ঠানটির ভাইস প্রেসিডেন্ট কাইল ক্লিঙ ও পার্টনার আবুল নুরুজ্জামান, জনপ্রিয় অভিনেতা আফজাল হোসেন, মাইক্রোসফট বাংলাদেশের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সোনিয়া বশির কবির, ‘সাপ্তাহিক’র সম্পাদক গোলাম মোর্তজাসহ আরো অনেকে। অনুষ্ঠানটি সঞ্চলনা করেন প্রিয়.কম এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাকারিয়া স্বপন।
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করছেন প্রিয়.কম এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাকারিয়া স্বপন
বিনিয়োগের বিষয়ে জাকারিয়া স্বপন বলেন, বাংলাদেশে স্টার্টআপ সংস্কৃতির ধারণা অনেকটাই নতুন। এখানে অনেক তরুণ উদ্যোক্তা আছে, যাদের ধারণাগুলো আমাদের অনেক সমস্যাই সমাধান করতে পারে। কিন্তু সঠিক সময়ে উপযুক্ত বিনিয়োগের সংস্থান করা এদেশে কঠিন। তিনি আরো বলেন, এইসব উদ্যোগ সফল করতে স্টার্টআপগুলোর জন্য দরকার প্রয়োজনীয় অর্থের যোগান, ব্যবস্থাপনা এবং সঠিক ব্যবসায়িক কৌশল। ফেনক্স ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, জাপান-সহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করেছে। বাংলাদেশে তাদের আগমন স্থানীয় হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিকে নতুন মাত্রা দেবে। আমি খুবই আনন্দিত যে, ফেনক্স বাংলাদেশে প্রথম প্রিয়.কম-এ বিনিয়োগ করছে, যার মাধ্যমে ঢাকা এবং সিলিকন ভ্যালির মাঝে একটি সেতুবন্ধন রচিত হতে যাচ্ছে।
বক্তব্য রাখছেন ফেনক্স-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট কাইল ক্লিঙ
অনুষ্ঠানে ফেনক্স-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট কাইল ক্লিঙ বলেন, আমরা সারা বিশ্ব জুড়েই স্টার্টআপ কোম্পানিগুলোতে বিনিয়োগ করে থাকি। বাংলাদেশে ফেনক্স যখন বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিলো, তখন ‘প্রিয়’কে আমরা একটি সম্ভাবনাময় ইন্টারনেট পোর্টাল হিসেবে দেখতে পেয়েছে, যেখানে এক ঝাঁক তরুণ প্রতিভাবান মানুষ কাজ করছে। আমরা আশা করি, আমাদের এই সম্পর্ক বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়ার পথে একটা মাইলফলক হয়ে থাকবে। প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেন, সারা বিশ্বের যতোকিছু পরিবর্তন হয়েছে তার মাঝে শিল্পবিপ্লব। আর এর পরই যে বিপ্লব আমাদের জীবনধারা বদলে দিয়েছে, তা হলো ইন্টারনেট আবিষ্কার। আমাদের অনেক সমস্যা। কিন্তু আমাদের অনেক বড় একটা শক্তি আছে। আমাদের জনশক্তি আছে। এই জনশক্তি আমাদের কাজে লাগাতে হবে। তরুণ জনশক্তিতে বিশ্বের সর্ববৃহৎ আমরা। এই শক্তি কীভাবে কাজে লাগানো যায়, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তা নিয়ে আমরা লাগাতার কাজ করে যাচ্ছি।
বক্তব্য রাখছেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক
তিনি বলেন, এরই ফলশ্রুতিতে ইউনিয়ন পর্যায়ে সাড়ে চার হাজার ডিজিটাল কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছি। এছাড়া আমরা আরো অনেক উদ্যোগই গ্রহণ করেছি। আজকে সারাবিশ্বের কাছে আইসিটি সেক্টরে আমাদের জনগণ যেভাবে খাপ খাইয়ে নিচ্ছে, তা বিস্ময়কর! তিনি আরো বলেন, আমরা আগামী চার বছরের মধ্যে দেশে দশ কোটির বেশি মানুষ ইন্টারনেটের আওতায় নিয়ে আনতে কাজ করছি। আমরা প্রতিটি জেলায় ফাইবার অপটিক ইন্টারনেট কানেকশনের আওতায় নিয়ে আসতে পেরেছি। ৪০ কোটির বেশি মানুষ বাংলা ভাষায় কথা বলে। আমরা বিশ্বে অষ্টম। মাতৃভাষায় কন্টেন্ট প্রদানের উদ্যোগ নিয়ে প্রিয়.কম দারুন একটা কাজ করছে। আর এধরণের নতুন নতুন আইডিয়ায় অর্থায়ন জরুরি। ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ইনকরপোরেশন এই অর্থায়ন করে আমাদের এধরণের উদ্যোগকে আরো বেশি উৎসাহিত করলো। প্রতিমন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, সরকার এধরণের উদ্যোগের পাশে সর্বদাই থাকবে। প্রিয়.কম এবং ফেনক্স-এর এই সম্পর্ক বাংলাদেশে ইন্টারনেট বিপ্লবে অগ্রনী ভূমিকা পালন করবে।
বক্তব্য রাখছেন মাইক্রোসফট বাংলাদেশের এমডি সোনিয়া বশির কবির
বাংলাদেশে এমন বিনিয়োগ সম্পর্কে মাইক্রোসফট-এর সোনিয়া বশির বলেন, প্রিয়.কম-এ ফেনক্স-এর বিনিয়োগের মাধ্যমে আমাদের জন্য নতুন দ্বার উন্মোচিত হলো। সুযোগ পেলে আমরা খুব ভালো করতে পারি। আমাদের এই সুযোগটা খুব দরকার। আমি খুবই আনন্দিত এই নতুন উদ্যোগ শুরু হতে যাচ্ছে বলে।
বক্তব্য রাখছেন জনপ্রিয় অভিনেতা আফজাল হোসেন
অভিনেতা আফজাল হোসেন বলেন, আজকের এই মুহূর্তে আমি শুধু একটি কথাই বলতে চাই। পৃথিবীতে ছোট বলেই কিছু নেই। আমরা বৃহৎ হতে চাই বলেই পৃথিবীটা বৃহৎ দেখতে পাই। এই বিনিয়োগ বৃহৎ হতে চাওয়ারই একটি অংশ। সাপ্তাহিক ‘সাপ্তাহিক’এর সম্পাদক গোলাম মুর্তজা বলেন, কোনো সন্দেহ নেই যে, এটি একটি ভালো উদ্যোগ। প্রিয় অনেক ভালো করছে। আমি খুব দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, এই বিনিয়োগের মাধ্যমে প্রিয় তার স্বপ্নের জায়গায় পৌঁছাতে পারবে।
বক্তব্য রাখছেন ‘সাপ্তাহিক’ সম্পাদক গোলাম মুর্তজা
বাংলাদেশের স্বনামধন্য মোবাইল ফোন কোম্পানি সিম্ফনি’র পক্ষ থেকে রেজওয়ানুল হক বলেন, আমরা ইন্ড্রাস্টির খুব সুইফট একটা সময়ের মাঝে দিয়ে যাচ্ছি। বর্তমান পৃথিবীতে সবার হাতে স্মার্টফোন পৌঁছে দিতে হবে সবার কাছে ইন্টারনেট পৌঁছাতে। আমরা সেই চেষ্টাই করছি। জাকারিয়া স্বপনের মতো যারা উদ্যোক্তা আছেন, তাদের অংশগ্রহণ খুবই জরুরি। আমরা সিম্ফনি’র প্রতিটা সেট-এই প্রি-ইনস্টলড ‘প্রিয়’ অ্যাপ্লিকেশন থাকবে, যার মাধ্যমে দেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কাছে খুব সহজেই প্রিয়.কম পৌঁছে যাবে।
বক্তব্য রাখছেন সিম্ফনি’র পক্ষে রেজওয়ানুল হক
সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ বলেন, পৃথিবীতে যা আসে, তার প্রয়োজন আছে বলেই সে এসেছে। একইভাবে শিল্প বিপ্লবের পর ইন্টারনেটের বিপ্লবেরও প্রয়োজন ছিলো বলেই তা হয়েছে। বর্তমান সময় ইন্টারনেটের যুগ, ডিজিটাল যুগ। আমি মনে করি, আমরা মানুষেরা একটি ডিজিটাল পৃথিবী গড়ে তুলছি এবং ক্রমেই আমাদের ভেতরের পৃথিবীকে বড় করে তুলছি। কিন্তু মনে রাখতে হবে, ডিজিটালের স্রষ্টা, মানুষ কিন্তু অ্যানালগ। সুতরাং আমাদের ভুল, অসহায়তা আমাদের শ্রেষ্ঠত্ব।
বক্তব্য রাখছেন অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ
তিনি বলেন, আমাদের ডিজিটাল অগ্রযাত্রা সবে শুরু হয়েছে। আমরা আরো সামনে এগিয়ে যাবো। আমি খুবই আনন্দিত, দেশে এমন একটা বিনিয়োগ হতে যাচ্ছে। আমি আশা করবো, এমন উদ্যোগ দেশে আরো হবে, এমন বিনিয়োগ আরো আসবে। আমরা এভাবেই সামনের পথে এগিয়ে চলবো। অনুষ্ঠানের এপর্যায়ে পার্টনারশিপ উদযাপন করতে করতে উপস্থিত সকল অতিথিদের নিয়ে কেক কাটা হয়। অনুষ্ঠানে শুধু এই বিনিযোগের ঘোষণাই দেওয়া হয়নি, সেই সাথে ‘প্রিয়.কম’-এর একটি নতুন সেবার উদ্বোধনও করা হয়। এই সেবাকে নাম দেওয়া হয়েছে প্রিয় আনসার। এই সেবায় যেকোনো মানুষের যেকোনো ধরণের প্রশ্নের উত্তর করা হবে। এজন্য প্রিয়.কম-এ থাকছে একটি বিশেষজ্ঞ প্যানেল, যারা এই প্রশ্নগুলোর ব্যাপারে উত্তর করবেন বা পরামর্শ দেবেন। এবিষয়ে জাকারিয়া স্বপন বলেন, আমরা শুধু মানুষকে সংবাদই জানাতে চাই না। মানুষের জীবনের প্রতিটা অংশ নিয়েই আমরা কাজ করতে চাই। আর এরই অংশ হিসেবে আমাদের এই নতুন সেবা।
সিম্ফনি’র মোবাইল ফোন প্রদর্শন করছেন জাকারিয়া স্বপন
এপর্যায়ে প্যানেল সদস্যদের সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। প্রথমেই আবদুল্লাহ আবু সায়ীদকে ক্রেস্ট প্রদান করেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক এমপি। এরপরই প্রতিমন্ত্রীসহ বাকি সদস্যরা আবদুল্লাহ আবু সায়ীদের কাছ থেকে ক্রেস্ট গ্রহণ করেন। ‘ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল’ এবং ‘প্রিয়.কম’-এর এই সম্পর্ক লক্ষ লক্ষ ইন্টারনেট ব্যবহারকারীকে যুক্ত করার মাধ্যমে বাংলাদেশি মিডিয়া জগতে নতুন এক ধারা সৃষ্টি করবে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা। ২০১১ সালে খুব ছোট পরিসরে বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করে প্রিয়.কম। এবং খুব দ্রুত সময়ে প্রতিষ্ঠানটি বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশি পাঠকদের মাঝে বিশেষ স্থান করে নেয়। এক হিসাবে জানা যায়, বর্তমানে বাংলাদেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি। এর মাঝে ইতোমধ্যে মোবাইল সংযোগ বিক্রি হয়েছে ১১ কোটির বেশি। এদের মধ্যে আবার ২ কোটিরও বেশি মানুষ ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত, পাশাপাশি ১ কোটির বেশি মানুষ স্মার্টফোন ব্যবহার করছে।
সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান
প্রিয়.কম এবং ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কর্তৃপক্ষ আশা করছে, বাংলাদেশে আগামী ২ বছরের মধ্যে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পাবে। কিন্তু বাংলাভাষায় কন্টেন্ট না থাকলে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি ত্বরান্বিত করা সম্ভব নয়। স্থানীয় একটি প্রতিষ্ঠান হওয়া সত্ত্বেও প্রিয়.কম সারা বিশ্বের বাংলাভাষী মানুষের জন্য বাংলায় মানসম্পন্ন কন্টেন্ট দিয়ে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে ‘ফেনক্স’ ‘প্রিয়.কম’কে প্রয়োজনীয় বিনিয়োগ, সঠিক প্রযুক্তি এবং বিশ্ববাজারে প্রবেশসহ যাবতীয় সহায়তা করে যাবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আশা করছে, ইন্টারনেটের নতুন যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ, যেখানে প্রতিটি নাগরিক এই সেবার সাথে যুক্ত থাকবে। এই পর্যায়ে প্রিয়.কম-এর মতো একটি ইন্টারনেট মিডিয়া কোম্পানি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে। প্রিয়.কম এমন কিছু অ্যাপ্লিকেশন নিয়ে আসবে যা মানুষের কাজের ও জীবনধারণের পদ্ধতি বদলে দেবে।
সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান
‘ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল’ আমেরিকার সিলিকন ভ্যালি-ভিত্তিক একটি বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান- যারা বিশ্বব্যাপী ইন্টারনেট, মোবাইল, স্যোশাল মিডিয়া, ক্লাউড এবং উদীয়মান প্রযুক্তির উপর বিনিয়োগ করে থাকে। প্রতিষ্ঠানটি অতি দ্রুত সারাবিশ্বে তাদের কার্যক্রম ছড়িয়ে দিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে প্রিয়.কম-এ বিনিয়োগের মাধ্যমে বাংলাদেশে নিজেদের যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে। ফেনক্স কেবল কোনো স্টার্টআপ-এ বিনিয়োগই করে না, সেই সাথে সিলিকন ভ্যালি ও এর বাইরে প্রযুক্তির প্রচলিত ধারার সম্মিলন ঘটায়। ফলে বিনিয়োগকৃত প্রতিষ্ঠানগুলো বিশ্বব্যাপী সুনাম অর্জন করে। ফেনক্স বর্তমানে আমেরিকা, জাপান, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া, বাংলাদেশসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশে বিনিয়োগ করছে। ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল-এর জেনারেল পার্টনার এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আনিসুজ্জামান নতুন এই উদ্যোগের ব্যাপারে এক লিখিত বিবৃতির মাধ্যমে বলেছেন, প্রিয়.কম একটি উপযুক্ত বাংলাদেশি স্টার্টআপ কোম্পানি, যেখানে ফেনক্স উজ্জ্বল সম্ভাবনা দেখতে পেয়েছে। এটি বাংলাদেশের একটি সেরা নিউজ পোর্টাল, যেখানে একটি সুদক্ষ কর্মীবাহিনী কাজ করছে। এছাড়া বাংলাদেশের ইন্টারনেট ব্যবহারে বিপ্লব এবং মোবাইল ফোন ব্যবহারের উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি প্রিয়.কমকে একটি সম্ভাবনাময় ভেঞ্চারে পরিণত করেছে।
সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান
তিনি আরো বলেন, আমরা বিশ্বাস করি, আমাদের অংশীদার এবং বিনিয়োগকারীগণ তাদের বিনিয়োগ এবং সঠিক নেতৃত্ব প্রদান করে বাংলাদেশকে প্রযুক্তি-বিশ্বে সম্পূর্ণ সফলতা অর্জনে সাহায্য করতে পারবে। বাংলাদেশের টেক শিল্পের এই বিবর্তনের সাক্ষী এবং অংশ হতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত। কর্তৃপক্ষ আশা করে, ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ইনকরপোরেশন এবং প্রিয় লিমিটেড-এর পারস্পরিক সহযোগিতা বাংলাদেশের স্টার্টআপ ইকোসিস্টেমকে প্রভাবিত করবে এবং এদেশীয় স্টার্টআপগুলোকে বিশ্ব দরবারে পরিচিত করে তুলবে। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশি উদ্যোগগুলো সিলিকন ভ্যালির বিভিন্ন উদ্ভাবনগুলোর সাথেও পরিচিত হয়ে উঠবে। ফলশ্রুতিতে এসব উদ্যোগ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন উদীয়মান বাজারে প্রবেশ করতে পারবে এবং বৈশ্বিক বাজারে নেতৃত্ব দেওয়ার পথ প্রশস্ত হবে।

ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল

ফেনক্স হলো একটি বৈশ্বিক ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ফার্ম, যার সদর দপ্তর সিলিকন ভ্যালিতে অবস্থিত। প্রতিষ্ঠানটি মূলত উত্তর আমেরিকা, এশিয়া এবং ইউরোপে উদীয়মান উদ্যোগগুলোতে সিড, ভেঞ্চার এবং বিকাশমান পর্যায়ে বিনিয়োগ করে থাকে। বিশ্বব্যাপী ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ইন্টারনেট, মোবাইল, স্যোশাল, ক্লাউড এবং উদীয়মান প্রযুক্তিতে বিনিয়োগ করে। প্রতিষ্ঠানটি ইতোমধ্যে ড্রিমলিঙ্ক এন্টারটেইনমেন্ট, টেরামটর্স, টেক ইন এশিয়া, জেএফডিআই, শেয়ারদিজ, সাইটকার, লার্ক, মেটা স্পেস গ্লাসেস এবং জেটলো’র মতো প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করেছে।
ফেনক্স-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট ও পার্টনারের সাথে ‘প্রিয়’ পরিবারের কয়েকজন

প্রিয়.কম (priyo.com)

বাংলাদেশের একটি দ্রুত বর্ধনশীল ইন্টারনেট পোর্টাল, যা ইয়াহু.কম’র আদলে কাজ করে যাচ্ছে। এই সাইটটি চব্বিশ ঘণ্টা রাজনীতি, ব্যবসা, খেলা, বিনোদন, লাইফ স্টাইল, খাবার, স্বাস্থ্য, শিক্ষা এবং ক্যারিয়ার বিষয়ে বিভিন্ন সংবাদ ও কন্টেন্ট পরিবেশন করে যাচ্ছে। পোর্টালটি প্রতি মাসে ১০ লক্ষ ইউনিক ভিজিটর এবং প্রতিদিন ৯ লক্ষের বেশি পেজ-ভিউ পেয়ে থাকে। প্রিয়.কম ইতোমধ্যে বাংলাদেশে স্বনামধন্য স্মার্টফোন প্রতিষ্ঠান ‘সিম্ফনি’র সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। ফলে প্রিয়’র লোগো সিম্ফনি’র ৫০ লক্ষ স্মার্টফোনে প্রি-ইনস্টলড থাকবে। যেসব প্রতিষ্ঠান প্রিয়.কম-এর কন্টেন্ট পার্টনার হিসেবে কাজ করছে, তারা হলো- চ্যানেল আই, রেডিও ভূমি, ইউএনবি, সাপ্তাহিক এবং আনন্দ আলো। প্রিয়.কম আরো বেশ কিছু সংবাদপত্রের সাথেও চুক্তিবদ্ধ, যাদের সাথে বিভিন্ন সংবাদ শেয়ার এবং সিন্ডিকেশন করে থাকে। বাংলাভাষী জনগোষ্ঠীকে গুরুত্ব দিয়ে এই প্রতিষ্ঠানটি আশা করে, বিশ্বব্যাপী বাংলা ভাষায় কন্টেন্টের প্রথম ঠিকানা হবে প্রিয়.কম। [video: https://www.youtube.com/watch?v=u1WTuaYhV8k]