পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক মিজানুর রহমান। ছবি: সংগৃহীত

মিজানকে জামিন দেওয়া যায় না: হাইকোর্ট

শুনানিতে মিজানের আইনজীবী মোমতাজ উদ্দিন আহমদ মেহেদী আদালতে বলেন, ‘পুলিশের এ (মিজানুর রহমান) কর্মকর্তা ভেরি অনেস্ট, তিনি জঙ্গি নির্মূলে কাজ করে গেছেন, তিনি স্বর্ণপদকও পেয়েছেন। পুলিশ বাহিনীতে তার অনেক উজ্জ্বল ভূমিকা রয়েছে।’

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১ জুলাই ২০১৯, ১৯:৫৭ আপডেট: ০১ জুলাই ২০১৯, ১৯:৫৭
প্রকাশিত: ০১ জুলাই ২০১৯, ১৯:৫৭ আপডেট: ০১ জুলাই ২০১৯, ১৯:৫৭


পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক মিজানুর রহমান। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) সাময়িক বরখাস্তকৃত উপ-মহাপরিদর্শক, ডিআইজি মিজানুর রহমান পুলিশের সুনাম, ভাবমূর্তিকে ধ্বংস করেছেন বলে মন্তব্য করেছে হাইকোর্ট। আদালত বলেছে তাকে আমরা জামিন দিতে পারি না।

১ জুলাই, সোমবার মিজানের জামিন আবদনের শুনানির সময় বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এমন মন্তব্য করেন।

শুনানিতে মিজানের আইনজীবী মোমতাজ উদ্দিন আহমদ মেহেদী আদালতে বলেন, ‘পুলিশের এ (মিজানুর রহমান) কর্মকর্তা ভেরি অনেস্ট, তিনি জঙ্গি নির্মূলে কাজ করে গেছেন, তিনি স্বর্ণপদকও পেয়েছেন। পুলিশ বাহিনীতে তার অনেক উজ্জ্বল ভূমিকা রয়েছে।’

এ সময় আদালত বলে, আমরা টেলিভিশনে দেখেছি সে (মিজানুর রহমান) ঘুষ নিয়ে ডেসপারেটলি বক্তব্য দিয়েছেন। সে শুধু নিজের প্রতিষ্ঠানের নয়, আরও একটি প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছেন। তাকে আমরা জামিন দেবো না। পুলিশের হাতে তুলে দেবো।

এরপর আদালত ডিআইজি মিজানকে পুলিশ হেফাজতে তুলে দেন। একইসঙ্গে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বিশেষ জজ আদালতে তাকে হাজির করতে বলা হয়। শুনানির পুরো সময় বিতর্কিত এই পুলিশ কর্মকর্তা আদালত কক্ষে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

এর আগে তিন কোটি ২৮ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় সাময়িক বরখাস্তকৃত পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানের আগাম জামিন নিতে হাইকোর্টে হাজির হন।

গত ১৯ জুন মিজানুর রহমানের স্থাবর সম্পদ ক্রোক এবং ব্যাংক হিসাবের লেনদেন বন্ধ করার নির্দেশ দেন বিচারিক আদালত।

নারী নির্যাতনের অভিযোগে দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার হওয়া মিজানুর রহমানের অবৈধ সম্পদের তদন্ত শুরু করেছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। কিন্তু, এই তদন্ত করতে গিয়ে দুদকের পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে মিজানুর রহমানের কাছ থেকে ৪০ লাখটাকা ঘুষ নেয়ার অভিযোগ উঠে।

প্রিয় সংবাদ/কামরুল