প্রতিকী ছবি

ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে শিক্ষক আটক

পরে ওই বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে যাবার সময় অভিযুক্ত শিক্ষক ছাত্রীর পিছু নেন। ছাত্রীর বাড়িতে গিয়ে কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চান।

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২ জুলাই ২০১৯, ২১:১৯ আপডেট: ০২ জুলাই ২০১৯, ২১:২১
প্রকাশিত: ০২ জুলাই ২০১৯, ২১:১৯ আপডেট: ০২ জুলাই ২০১৯, ২১:২১


প্রতিকী ছবি

(প্রিয়.কম) সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে যশোরে এক স্কুল শিক্ষককে আটক করেছে পুলিশ।

২ জুলাই, মঙ্গলবার ইউসুফ আলী নামের এই শিক্ষককে আটক করা হয়।

ইউসুফ আলী যশোর সদরের বালিয়া-ভেকুটিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কৃষিশিক্ষা বিষয়ের সহকারী শিক্ষক। শিক্ষার্থী ও তার পরিবারের অভিযোগের পর তাকে আটক করা হয়। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

ভিকটিম ছাত্রী ও তার মা অভিযোগ করেন, মঙ্গলবার বিদ্যালয়ে সপ্তম শ্রেণির ইংরেজি বিষয়ের অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা ছিল। পরীক্ষা শেষে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ওই শিক্ষার্থী টয়লেটে যায়। সেখানে ঢুকে শিক্ষক ইউসুফ আলী তাকে জড়িয়ে ধরে কু-প্রস্তাব দেন। এ সময় শিক্ষার্থী পালিয়ে পাশের শাহাজানের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। পরে ওই বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে যাওবার সময় অভিযুক্ত শিক্ষক ছাত্রীর পিছু নেন। ছাত্রীর বাড়িতে গিয়ে কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চান।

কিন্তু এরই মধ্যে বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয়রা ইউসুফকে মারপিট করেন। তাকে রক্ষা করতে এসে জাহাঙ্গীর নামে আরও এক শিক্ষক গণরোষের শিকার হন।

ওই শিক্ষার্থী ও তার মা আরও জানান, পরীক্ষার কয়েকদিন আগে থেকেই শিক্ষক ইউসুফ আলী নিয়মিত তাদের বাড়িতে অযাচিত প্রবেশ করে ওই শিক্ষার্থীকে নিজের বাড়িতে যাওয়ার প্রস্তাব দিতেন। কিন্তু মেয়েটি ওই প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি।

যশোর কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (অপারেশন) শামসুদ্দোহা জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষককে থানায় নিয়ে আসে। ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

বালিয়া-ভেকুটিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল কাদের জানান, এই শিক্ষককে নিয়ে এর আগে নানা কানাঘুষা শোনা গেলেও আনুষ্ঠানিকভাবে কেউ অভিযোগ করেননি। এটাই তার বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিকভাবে করা প্রথম অভিযোগ।

প্রিয় সংবাদ/কামরুল