জাকাত

ব্যাংক থেকে নেওয়া ঋণের টাকার জাকাত দিতে হবে কিনা?

সাধারণত জাকাতদাতার কোনো ঋণ থাকলে মূল টাকা থেকে ঋণের পরিমাণ বাদ দিয়ে অবশিষ্ট টাকার উপর জাকাত দিতে হবে, এটাই ইসলামের বিধান। কিন্তু শিল্প বিপ্লবের এই যুগে ঋণের ধরনই বদলে গেছে। এখন দেখা যাচ্ছে, যারা বড় বড় শিল্পপতি, পুঁজিপতি তারাই সবচেয়ে বেশি ঋণী। ব্যাংক থেকে তারা কোটি কোটি টাকা ঋণ নিয়ে কল-কারখানা বানাচ্ছেন। নিজের পুঁজি সামান্যই বলা যায়। এই অবস্থায় ঋণের টাকা বিয়োগ করলে তাদের নিকট তেমন কিছুই আর থাকে না। পরিভাষায় এটাকে ডেভেলপমেন্ট বা উন্নয়নমূলক ঋণ বলে।

মিরাজ রহমান ২২ নভেম্বর ২০১৬, ০৫:১৮

কেয়ামতের দিন আরশের নিচে ছায়া পাবেন যারা!

আবু সাইদ খুদরি সূত্রে, রাসুল সা. আরো বলেন, কোনো মুসলমান অপর কোনো বস্ত্রহীনকে কাপড় পরিধান করাবে, আল্লাহ তাকে জান্নাতের সবুজ পোশাক পরাবেন। কোনো মুসলমান অপর ক্ষুধার্তকে আহার করাবে, আল্লাহ তাকে জান্নাতের সুস্বাদু ফল খাওয়াবেন, কোনো মুসলমান অপরের তৃঞ্চায় পানি পান করাবে আল্লাহ তাকে জান্নাতের সুঘ্রাণযুক্ত পানি খাওয়াবেন। (আবু দাউদ, ১৬৮২)

মুফতি হুমায়ুন আইয়ুব ০৪ জুলাই ২০১৬, ০৫:৫৪

ঋণ মাফ করার দ্বারা জাকাত আদায় হবে কিনা?

না, এভাবে ঋণ মাফ করার দ্বারা যাকাত আদায় হবে না। কেননা, যাকাত আদায়ের জন্য উপযুক্ত ব্যক্তিকে যাকাতের মাল নগদে মালিক বানিয়ে দেওয়া শর্ত।

মিরাজ রহমান ২৯ জুন ২০১৬, ০৩:৩৩

জাকাতের টাকা দিয়ে কোনো মৃতের ঋণ পরিশোধ করা যাবে কিনা?

যাকাতের অর্থ দিয়ে কোনো মৃতের ঋণ পরিশোধ করলে যাকাত আদায় হয় না। অবশ্য মৃত ব্যক্তির ওয়ারিসগণ যাকাতের উপযুক্ত হলে তাদেরকে যাকাতের অর্থ দেওয়া যেতে পারে। অতপর তারা চাইলে তা দ্বারা মায়্যেতের ঋণ আদায় করে দিতে পারবে।

মিরাজ রহমান ২৮ জুন ২০১৬, ০৫:২৮

আত্মীয়-স্বজনকেকে কি জাকাত দেওয়া যায়?

প্রকাশ থাকে যে, যাকাত গ্রহণ করতে পারে এমন আত্মীয়স্বজনকে যাকাত দিলে যাকাত দেওয়ার সওয়াবের পাশাপাশি আত্মিয়তার সম্পর্কের হক আদায়ের সাওয়াবও হবে।

মিরাজ রহমান ২১ জুন ২০১৬, ০৪:০৯

যাদের জাকাত দেয়া যাবে এবং যাদের দেয়া যাবে না

জাকাত কারা নিতে পারবে বা কাদের দিবেন বিষয়টি অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। জাকাতের উদ্দেশ্যই হলো দরিদ্র দূর, কিন্তু সেটা না হয়ে জাকাত যদি অপাত্রে যায় তবে সেই জাকাতে উদ্দেশ্য পূর্ণ হবে না। আসুন জেনে রাখি কাদের জাকাত দেয়া যাবে আর কাদের যাবে না।

মাওলানা রোকন রাইয়ান ২৪ মার্চ ২০১৬, ০১:৫৪

কোন কোন ব্যক্তির ওপর জাকাত ফরজ এবং কেন ফরজ?

১. ব্যক্তিকে মুসলমান হতে হবে। ২. সুস্থ ও জ্ঞান সম্পন্ন হতে হবে। পাগলদের জন্য জাকাত ফরজ নয়। ৩. প্রাপ্ত বয়স্ক হতে হবে। নাবালেগের ওপর জাকাত ফরজ নয়। ৪. নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হতে হবে। ৫. নিসাব পরিমাণ সম্পদ পূর্ণ এক বছর মালিকানায় থাকা। যদি পূর্ণ এক বছর না হয় তাহলে জাকাত আদায় করা ওয়াজিব হবে না।

মাওলানা রোকন রাইয়ান ২২ মার্চ ২০১৬, ০৪:২১

সামাজিক ভ্রাতৃত্ব মজবুত করে জাকাত

মানুষ হিসেবে প্রতিটি ব্যক্তির দায়িত্ব রয়েছে। তার আছে সামাজিক বোধ। মানুষকে তৈরি করা হয়েছে মানবিক জ্ঞানসম্পন্ন করে। সমাজ ও এলাকার জন্য তার রয়েছে দায়িত্ব। এ দায়িত্ব পালনের উত্তম পন্থা হতে পারে জাকাত। একই সঙ্গে জাকাত আপনার ভ্রাতৃত্বের বন্ধন আরো দৃঢ় করবে।

মাওলানা রোকন রাইয়ান ২০ মার্চ ২০১৬, ০৩:৫৯

ইসলামি রাষ্ট্র না হলে জাকাত দিতে হবে না- কথাটি সঠিক নাকি ভুল?

এটি একেবারেই ভ্রান্ত ধারণা। আপনি ইসলামি রাষ্ট্র নেই বলে খাওয়া বাদ দেননি, কাপড় পরা বাদ দেননি, উপার্জন বাদ দেননি- তাহলে জাকাত কেন বাদ দেবেন। জাকাত ফরজ বিধান। নামাজ যেমন ফরজ। ইসলামি রাষ্ট্রের সঙ্গে যেমন তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। তেমনি জাকাত আদায়ে রাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পৃক্ততা খোঁজা বোকামি।

মাওলানা রোকন রাইয়ান ১৪ মার্চ ২০১৬, ০৫:১৬

ধন-সম্পদ জাহান্নামের আগুনে উত্তপ্ত করে কপালে ও পিঠে দাগ দেয়া হবে কাদের?

যারা সোনা-রূপা পুঞ্জীভূত করে এবং তা আল্লাহর পথে ব্যয় করে না তাদের যন্ত্রনাময় শাস্তির সংবাদ দাও। যেদিন ধন-সম্পদ জাহান্নামের আগুনে উত্তপ্ত করা হবে, তারপর তা দ্বারা তাদের কপাল, তাদের পাজর ও পিঠে দাগ দেয়া হবে। বলা হবে, এই হচ্ছে সেই সম্পদ যা তোমরা নিজেদের জন্য পুঞ্চীভূত করতে, সুতরাং তোমরা যে সম্পদ পুঞ্জীভূত করতে তার মজা ভোগ কর। [সুরা তাওবা : ৩৪,৩৫]

মাওলানা রোকন রাইয়ান ১৩ মার্চ ২০১৬, ০২:১৬

loading ...