মতামত

দ্বিধায় রাঙা রংধনু

শেগুফতা শারমিন: আজ যারা সমলিঙ্গের বিয়ের অধিকারে উচ্ছসিত, কালকে যদি তার ছেলে বা মেয়ে নিজেকে সমকামী পরিচয় দিয়ে সামাজিক স্বীকৃতি দাবি করে, তখন তিনি বা তারা কি এতটাই নিঃসংকোচে মেনে নেবেন, নাকি আমার মতোই কুন্ঠাবোধ করবেন? নিত্য নতুন এইসব পরিবর্তনে সমর্থন করা বা না করার আগে কি নিজের সম্পর্কে পরিস্কার ধারনা থাকা দরকার না?

নিপীড়ক সাংবাদিকের প্রতি ঘৃণা, তন্বী আপুর জন্য শ্রদ্ধা

নাদিয়া শারমিন: যে নারী তার সন্তানের জন্য নিজের জীবন দিতে পারে, যে নারী সংসারের আর সন্তানের কথা ভেবে এত অত্যাচার সহ্য করেও ঐ সংসারেই টিকে থাকার জন্য শেষ পর্যন্ত চেষ্টা করে, যে এতকিছু মাফ করতে পারে- সে যখন কোন কিছু নিয়ে ডেসপারেট হয়ে ওঠে তখন কতটা ভয়ঙ্কর, কতটা শক্তিশালী হয়ে উঠতে পারে তা ভেবে দেখবেন

গালিবাজরাই ঠিক, আমরাই ভণ্ড

আপনাদের বিদেশী ক্রিকেটার এবং অফ ফর্মের ক্রিকেটারদের ক্ষেত্রে যে নিয়ম, সেটাই এখন অন-ফর্মের ক্রিকেটারের ক্ষেত্রে ঘটেছে। এটুকুই তো? এ ছাড়া কোনো বিশেষত্ব তো দেখছি না।

মায়া-কামরুলে সরকার বিভ্রমে

প্রভাষ আমিন: মায়া-কামরুল বিপাকে পড়ায় সরকারকে যতটা বিব্রত মনে হচ্ছে, আমার মনে হয় না, তারা সত্যি সত্যি ততটা বিব্রত। বরং একট চোরা উল্লাস লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এখন সরকারের সামনে সুযোগ, হঠাৎ বেড়ে ওঠা দুইজনকে একটু সাইজ করা এবং একই সঙ্গে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ দৃশ্যমান করা।

প্রিয় ইসলাম

তৃতীয় কলাম

প্রিয় উত্তর